সত্যি কথা সম্পর্কে পর্ব ১

সত্য কিছু ঘটনা।

আমি গল্প লিখি সখে। আমার গল্পে কিছু সত্য ঘটনার সাথে মিল রেখে কল্পনায় লিখি। আজ সত্য এবং আন্সপেক্টেড কথা লিখবো। আমার গল্পে খালা চরিত্র কেন বেশি থাকে।

আজকে গল্প নয়। বাস্তব কিছু ঘটনা বলবো। বন্ধুর কাহিনি লিখতে বলেছে।

আমার একটাই খালা। খুব মেধাবী ছাত্রী ছিল। ইন্টারে পড়ার সময় বিয়ে হয়ে যায়। সাধারন পরিবার। ঢাকায় ভাল ব্যাবসায়ী ছেলে পেয়ে নানা বিয়ে দিয়ে দেয়। ছেলে মেট্রিক পাশ কিন্তু ভাল ব্যাবসা করতো। ভাল টাকা কামাতো। ছেলেটি দেখতে ভাল ছিল না। মোটা মানুষ। পেটওয়ালা মানুষ। মেজাজ খুব খারাপ ছিল উনার। কথায় কথায় টাকার গরম দেখাতো খালাকে। ভালবাসা খুব একটা বুঝতো না। খালা মানষিক ভাবে ভাল ছিল না উনার সাথে। আমি আবার ফিরে আসছি খালার গল্পে।

আমার কথা কিছু বলি,
আমি খুব ভদ্র ছেলে ছিলাম। এলাকায় সবাই আমাকে ভদ্র হিসাবেই জানে। এইটে পড়ি তখন একবার ঢাকা গিয়েছিলাম। আসার পথে ট্রেইনে একটা বই পেয়েছিলাম। রসময় গুপ্তের লিখা। সেই বইটিতে পারিবারিক সেক্সের গল্প পড়ে আমার অন্তরে একটি বিকৃত মানুষিকতার ভাব তৈরি করে দেয়।

আমাদের ছিল একটা ঘর। দুইটা রুম আর একটা রুম ছিল বারান্দায়। বারান্দার রুমে আমি থাকতাম। রাতে বাহির হয়ে আমার চাচার ঘরের ফাক দিয়ে চাচা চাচির সেক্স দেখতাম। বেশ কয়েক দিন অপেক্ষা করে হয়তো একদিন দেখতে পেতাম। মাঝে মাঝে জানালা দিয়ে আব্বু আম্মুকে দেখতাম ঘুমিয়ে পরেছে কি না। যেন বাহির হয়ে আমায় না খোজে। দেখতে গিয়ে আব্বু আম্মুর সেক্স করতে দেখি। অনেকবার দেখেছি।

এর মধ্যে আমার বড় বোনের বিয়ে হয়। ছেলে সমাজ কল্যান অফিসে কেরানীর চাকরি। আমাদের বাড়িতেই আপু বেশি থাকতো। এক সময় জেলায় বদলি হয়ে গেলে দুলাভাই একটা বাসা নেয়। দুইটা রুম। সাধারন বাসা। শহরের শেষ প্রান্তে গ্রামের এলাকায়। দুলা ভাই আমাকে নিয়ে জেলার ভাল একটা স্কুলে এইটে ভর্তি করে দেয়। ছাত্র ভাল ছিলাম। সেখান থেকে আমার বিকৃত রুচি আরো বেড়ে যায়। এক সপ্তাহ পরেই আমি আগে ঘুমিয়ে গেলে যাই কিন্তু আসলে সজাগ ছিলাম। আমার আর আপুর খাটের মধ্যে শুধু বাশের বেতের তৈরী পার্টিশন দেওয়া।

আমার ঘর অন্ধকার তাদের রুমের ডিম লাইটের আলো জ্বলছে। আপু আর দুলা ভাইয়ের শ্বাস প্রশ্বাসের শব্দও শুনতে পাই। আজ আপুর গোংগানী শুনছি। প্রথম ভাবলাম ঘুমে হয়তো এমন করছে। কিন্তু এত তারাতারি ঘুমানোর কথা নয়। এই মাত্র কথা শুনলাম। আপুর আহ আহ আহ শুনে বুঝতে পারছি উনারা কি করছে। আপু দাত চেপে শব্দ না করার চেষ্টা করছে। দুলা ভাই জোরে জোরে শ্বাস নিচ্ছে।

বেশ কিছুদিন শুনার পর আমি তাদের রুটিন বুঝে গেছি। কোন দিন করে আর কোন সময়। আমার দেখার অভ্যাস আরো বেড়ে যাচ্ছে।

পার্টিশনে কয়েকটা ছিদ্র করে রাখলাম। নিয়মিত আমি দেখি। আপু সেটা বুঝে যায় যে আমি তাদের দেখি।।
এক সকালে আপু আমাকে বলে, রাতে বাতি নিভিয়ে রুমে হাটিস কেন?
আমি ভেবাচেকা খেয়ে বলি, আমি বাতি নিভিয়ে হাটবো কেন? আর হাটবি না। ১০টার মধ্যে ঘুমিয়ে যাবে।
ঠিক আছে বলে আমি চলে যাই।

এক সপ্তাহ পর আবার বলে, বলছি না হাটাহাটি করবি না। তোর দুলা ভাই খারাপ মনে করবে। এইখানে থাকতে পারবি না গ্রামের স্কুলে পাঠিয়ে দিবে।

কয়েক সপ্তাহ আর উঠে দেখিনা। খাটে শুয়ে থেকে যা পারি শুনি কিন্তু আমার নেশা হয়ে যায়। আপুর রুমের ভেতর পার্টিশনে কাগজ লাগিয়ে দেয়। আমার আর দেখা হয় না কিন্তু শব্দ শুনি।

দুলা ভাই একদিন কাগজ ছিড়ে খুলে ফেলে দেয়। বিশ্রি লাগে বলে। আমাকে ডেকে দুলা ভাই বলে শান্ত এই কাগজগুলি বাহিরে কোথাও ফেলে দিয়ে আয়।

আমি কাগজ নিয়ে বাহিরে যেতে আপুর সাথে দেখা। আপু পাক ঘরে পাক করছে আমাকে কাগজ নিয়ে যেতে দেখে বলে, আবার হাটাহাটি শুরু হবে। কি মনে করে আমার সাথে সাথে এসে বলে, আর যদি দেখি তুই লুকিয়ে লুকিয়ে দেখার চেষ্টা করছিস তাহলে আমি আব্বাকে আম্মাকে বলে বাড়িয়ে পাঠিয়ে দিব। তোর দুলা ভাই বুঝতে পারলে কি হবে বুঝিস না। গাধার বাচ্ছা বোনেরতা কেউ দেখে। আমার মুখের কাছে আংগুল এনে বলে আমি কিন্তু সাবধান করে দিচ্ছি। আমি চুপ করে চোখ নিচে রেখে দাড়াইয়া থাকি। লজ্জাও হচ্ছিল ভীষন। মনে মনে প্রতিজ্ঞা করি আর দেখবো না। আপু চলে যায়। আমি আর ঘরে ফিরি না। শহরে একা একা হেটে সেই রায় ৯টায় বাসায় আসি। দুলা ভাই খুব রাগ করে বলে এত সময় কোথায় ছিলে শান্ত।

আপু এসে বলে আমি বকাবকি করেছিলাম তাই রাগ করেছে। বাদ দাও। দুলা ভাই পাশের টং দোকানে চলে যায়। আপু আমাকে আবার বলে, আমি তোরে কত আদর করি। তুই এত সময় বাহিরে ছিলে আর দুপুরে খাবারও খাস নাই। আমার কষ্ট হয়না। ধরে নিয়ে খাবার দিয়ে পাশে বসে বলে, কেন দেখিস। আমার লজ্জা হয়না। আমি জানি তুই দেখিস। তুই নিজেই বোঝার চেষ্টা কর যদি কোন মেয়ে জানে যে তার ছোট ভাই দেখছে তাহলে কেমন লাগে? নিজের জামাইকেও বলা যায় না।

আমি প্রায় এক মাস আর দেখিনা।

একদিন আপু আমার রুমে এসে বলে, এই ছিদ্রে দিয়ে দেখতে তাই না।আপু নিজেই চোখ ছিদ্রে দিয়ে দেখার চেষ্টা করে। নিজে গুতা দিয়ে ছিদ্রটা একটু বড় করে দেয় আর বলে আমি জানি তুই আর দেখিস না।

রাতে আমি ঘুমিয়ে যাই। সকাল সকাল। আপু আজ একটু বেশি বেশি শব্দ করছে। আমি শুয়ে শুয়ে শুনছি। দুলা ভাই বলছে এত শব্দ করছো কেন। শান্ত শুনবে। আপু বলে না ঘুমিয়ে গেছে। শান্ত ঘুমালে মরার ঘুম ঘুমায়।

আমি আর সহ্য করতে পারছি না উঠে গেলাম। ছিদ্রে চোখ দিতেই দেখি আপুর উপরে দুলা ভাই আর আপু ছিদ্রে চোখ দিয়ে থাকিয়ে আছে। আমার চোখ পরতেই আপু দুলা ভাইয়ের পিঠে উপর রাখা হাত দিয়ে ইশারা করছে যেন আমি চলে যাই। আমি প্রথম প্রথম বুঝতে পারি নাই। যখন কিল দেওয়ার ভংগি করে আমাকে দেখাচ্ছে তখন বুঝি সেটা আমাকেই দেখাচ্ছে। তখন আমিও চলে আসি আর সকালে গালি খাওয়ার ভয়ে ভয়ে ঘুমিয়ে যাই।

সকালে আপু কিছুই বলে নাই। স্কুল থেকে এসে দেখি ছিদ্রটা অনেক বড় হয়ে আছে। আমার বালিশের কাছেও একটা ছিদ্র। আমার সন্দেহ হল কারন কি। আমার মনে হল আপু চায় এখন আমি দেখি। আজ রাতে আর হল না।
আরো বেশ কয়েকদিন আমি ইচ্ছা করেই দেখি না। সকালে আমাকে বলে ভাল হয়ে গেছিস তাই না।

রাতে আপু আমাকে বলে, তারাতাড়ি শুয়ে পর। এমন একটা ভাব যেন আমাকে দেখার আমন্ত্রন জানাচ্ছে মনে হল। আমি এক গ্লাস পানিয়ে বলি, এখনই শুয়ে যাচ্ছি।।

বাতি বন্ধ করে আমি দাড়িয়ে থাকি। সংসারের অনেক গল্প আর সবার কথা বলে আপু ডিম লাইট জ্বালিয়ে মেইন লাইট বন্ধ করে বলে, তুমি কি ঘুমিয়ে যাবে। দুলা ভাই বলে সারাদিন কি বললে আর এখন ঘুমাবো কেন? কাল তো অফিস নাই।

না এমনি বলছি যদি তুমি ক্লান্ত থাক তাই। আপুর একটা নকশি কাথা আছে। সেটা গায়ে জড়িয়ে সব সময় করে। সেটা নিয়ে বিছানায় এসে শুয়ে চুমাচুমি করতে থাকে আর মাঝে মাঝে ছিদ্রে চোখ রাখে। কিছুক্ষন করে দুলা ভাই উপরে উঠে শুরু করে দেয় আর আপু ছিদ্রে চেয়ে হাসি দিয়ে মজা নেয়। আমি আর সরি না। আপু বার বার হাসে।

সকালে আপু আমার দিকে চেয়ে শুধু হাসে। নাস্তা খেতে খেতে বলি, আপু দুলা ভাই কই। কেন দুলা ভাইকে দিনের বেলায় কিসের দরকার। আমি আর কিছুই বলি না।

এক সপ্তাহ পর রাতে আবার বলে, শুয়ে পর। এখন এই শুয়ে পর কথাই আমার কাছে মনে হয় এক্ষনি শুরু হবে।

আজ আপু ইচ্ছা করে দুলা ভাইয়ের উপরে উঠে করার সময় নকশী কাথাটা টানার ভান করে আমাকে দুধ দেখিয়ে দেয়। আর দুলা ভাইকে করার সময় কাথাটা টেনে টেনে পাছার উপরে নিয়ে যায় আর আমি আপুর পাছা পুরুটা দেখতে পাই। আপু মাথা ঘুরিয়ে বার বার আমাকে দেখার চেষ্টা করে। এক সময় দুলা ভাইকে ঘুরিয়ে ছিদ্রের কাছে এনে আপু উপর উঠে করতে থাকে আর আমার ৩০ ইঞ্চি দূরে আপুর চোখ। আপু টাপ দিচ্ছে আর দুধগুলি লাফাচ্ছে। দুলা ভাইকে না দেখে আমার দিখে চেয়ে আছে। একবার পজিশন ঠিক করতে গিয়ে ছিদ্রে মধ্যে মুখ এনে একটা চুমু দিয়ে দেয়।। তারপর পিছিয়ে গিয়ে ইশারা করে মনে হল বলছে কেমন হল। এখন বার বার সেখানে থেকেই ওম্মা ওম্মা করে ছিদ্রে চেয়ে থেকে হাসছে। আমি চরম উত্তেজিত হয়ে হাত মেরে মাল ফেলে দেই।

সকালে নাস্তা করতে করতে আপু হাসি চেহারায় বলে, খুশি।
আমি বলি খুশি কিসের জন্য আপু।

না এমনিতেই।

আমি ইচ্ছা করে দুইবার আর দেখি নাই। দেখতে চাই আপু কিছু বলে কি না।

দুই সপ্তাহ পর এক রাতে। দুলা ভাই বাহিরে দোকানে। সেটা দুলা ভাইয়ের রুটিন। ৭টায় টং দোকানে যাবে চা খাবে আর ৯টায় আসবে। আপু ৮টার সময় আমার পড়ার টেবিলের কাছে এসে দাড়িয়ে বলে, শান্ত আর দেখিস না কেন?

আমি বলি, না আপু আর দেখবো না।

আপু বলে, কেন কি হয়েছে।

আমি বলি, দেখা উচিত না আপু।

আমার অভ্যাস হয়ে গেছে এখন তুই না দেখলে আমার ভাল লাগে না।
আপু বেড়াটা দেখিয়ে বলে, দেখে দেখে এই জায়গাটা ময়লা করে ফেলেছিস। বিশ্রি গন্ধ করে। প্রতি দিন আমি পানি দিয়ে পরিষ্কার করি। একটা কাপড় রাখতে পারিস না।।দাড়া বলে আপু রুমে গিয়ে একটা পুরাতন শাড়ি চেড়া কাপর এনে টেবিলে রেখে বলে, এইটার মধ্যে ফেলিস আর সেখানে রেখেদিস। আমি ধুয়ে শুকিয়ে এনে আবার রেখে দিব আবার।
আমি বুঝতে পারি আপুও বিকৃত রুচির শিকার হয়ে গেছে। আমি কিছুই বলি নাই।

আপু চলে যাওয়ার সময় বলে, তোর দুলা ভাই এখন আসবে তুই বাতি নিভিয়ে শুয়ে পর। আর এই ছিদ্রটা বড় কর বলে লোহার একটা রড দিয়ে ভেংগে অনেক বড় করে দেয়।এখন দুইটা আংগুল যাবে। আপু চলে যায়। আমি শুয়ে যাই।

দুলা ভাই আসতেই আপু এত দেরি কেন তোমার। আমি অপেক্ষা করছি। শান্ত অনেক আগেই ঘুমিয়ে গেছে শরির খারাপ।
দুলা ভাই বলে জানি আজ হবে তাই একটি ব্যায়াম করে আসলাম। এইটা সেইটা করে চুমাচুমি করে দুলা ভাই ইশারা করে বলে চুসে দাও। আপু বলে ধুয়ে আস গিয়ে। দুলা ভাই যেতেই ছিদ্রের কাছে মুখ এনে আস্তে করে বলে, নতুন কিছু আসছে।

দুলা ভাই আসতে বলে এইভাবে শুয়ে যাও খাট শব্দ করে না। দুলা ভাই শুতেই আপু ললিপপ খাওয়ার মত করে দুলা ভাইয়ের সোনা চুসে দেয় আর আমার দিকে চেয়ে চোখ মারে। অনেক্ষন চুসে আপু বলে তোমার আজ কিছু করতে হবে না সব আমি করবো। দুলা ভাইয়ের উপর উঠে ছিদ্রের কাছে মুখ এনে বলে ভাল লেগেছে। বলে কিন্তু আমাকে জবাব দেয় দুলা ভাই। হ্যা খুব ভাল লেগেছে।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top