সত্যি কথা সম্পর্কে পর্ব ৪

শান্ত একটা সমস্যা আছে। এই বিল্ডিংয়ের একটা সোসাইটি আছে। সেখানে আমাদের সম্পর্কের কথা বলতে হবে। কি বলা যায়। যদি বলি তুই ভাগিনা ওরা কি মনে করে।যে অবিবাহিত খালা ভাগিনা এক সাথে থাকে। বুঝতে পারছিনা।

খালা তাই বল। তুমি কি কখনো মিথ্যা বল নাকি? ওরা যা ভাবে ভাবুক।

খালা হেসে বলে, বলে দেই বয়ফ্রেন্ড কি বলিস। হা হা হা করে খালা হাসে।
তুমি হাসলে খুব সুন্দর লাগে খালা কিন্তু মিথ্যা বলতে পারবে না।।

বয়ফ্রেন্ড অর্থ কি। ছেলে বন্ধু তাই না?
খালা এই বন্ধুর সাথে গোপন সম্পর্ক থাকে।
ওরা কি আর আমাদের বেডরুম চেক করবে নাকি?

তা ঠিক।
আর যদি চেক করে আমরা এক সাথে শুয়ে দেখিয়ে দিব বলে আবার হাসতে থাকে।।

চলবে না খালা।

স্বামী কেমন হয়।

না খালা, ভাগিনা সব চেয়ে নিরাপদ।
দুরত্বের সম্পর্ক। সন্দেহ নাই। ভেজাল নাই।
যা ঠিক আছে ভাগিনাই হবে।

খালা আমি আসলেই তোমার ভাগিনা। হওয়ার কিছু নাই।।

তুই আমার বন্ধু। ভাগিনা না। আমার বয়ফ্রেন্ড শুধু গোপন সম্পর্ক ছাড়া।

খালা চল সিনেমা দেখি।

খালা বলে, আমি এখন লাল সিনেমা দেখবো। তুই রোমে গিয়ে ঘুমিয়ে যা।

কি বল খালা। আজ আমরা খুশি সেলিব্রিট করব আর তুমি ঘুমাতে।

তুই এখানে দেখ আর আমি আমার রুমে যাই।।
তোমার রুমে টিভি আছে নাকি?

কেন দেখিস নাই।
না আমি তোমার রুম দেখিনাই।।

চল চল গিয়ে দেখে আয়।

তুমি ছাড়া তোমার রুমে যাব।

খালা উঠে একটা লাল মুভি হাতে নিয়ে রুমে যায়। বিশাল খালার রুম। শুয়ে শুয়ে দেখার জন্য বড় একটা টিভি সিডি প্লেয়ার। খালা একটা সিডি দিয়ে বলে, আমার জন্য শুধু এই টিভি।
আমাকে দেখতে দিবে না তুমি।।

আমি এখন সুইচ দিলেই তুই পালাবি।।আমি জানি বলে হাসি দিতে থাকে। ছাড়বো নাকি।।

আমি খালার বিছানার উপর উঠে বলি, তোমার সাহস থাকলে ছাড়। আমি দেখবো।

খালা বলে আয় টিভি রুমে গিয়ে একটা ইংলিশ ছবি দেখে ঘুমাই।
আবার গিয়ে আমরা বসি। খালা বলে, লিসা আমার জন্য চার বোতল ওয়াইন এনেছিল। ফ্রিজে আছে চল আমরা একটু ট্রাই করি। খালা নিজেই নিয়ে আসে। গ্লাসে ডেলে একটু খাই।

সিনেমা লাগিয়ে বসে বসে দেখি। খালা বলে সিনেমাটা আমার জীবনের সাথে মিল রেখে বানানো। অপমান অপদস্ত সহ্য করে একটা মেয়ে সফল হয়েছে। অনেক টাকার মালিক হয়ে ছেলেদের সাথে টাকার বিনিময়ে সেক্স করে। শুধু আমি সেটা করিনা। ভাল লাগবে।খালা খুব আফসেট হয়ে যায়। আমি খালাকে হালকা ভাবে জড়িয়ে ধরে শান্তনা দেই।।
বলি খালা তুমি এখন বিয়ে করে নাও। ভাল একজন মানুষ দেখে।

কেন সেক্সের জন্য। আমি সেক্স চাইলে প্রতিদিন পাব। তোর মত খেয়াল কে করবে বল।
খালা আমি খেয়াল রাখতে পারি। কিন্তু তোমার নিড আছে।সেক্স পার্ট অব লাইফ। দরকার সেটা।

আমি সেটা প্রতিদিন টের পাই।৷ প্রতি মহুর্তে মনে করিয়ে দেয়। ডিষ্টার্ব করে আমার ফোকাস নষ্ট করে।।তাইতো এই ছবি দেখি। কন্ট্রোল মাই সেল্ফ।

ছবি দেখে নিজের উপর অত্যাচার করে লাভ কি। দুধের স্বাদ গুলে কি মিটে।
খালা কেদে দেয়। আমার উপর মাথা রেখে বলে আমি ক্লান্ত শান্ত। আই এম বার্নিং মাই সেল্ফ। আমি আর কমিটমেন্টে যেতে চাই না। তোর খালু আমর সব ফিলিংস নষ্ট করে দিয়েছে।।

আমি খালাকে আদর করে বলি, আমি জানি খালা। সরি আমি তোমার কষ্টের জন্য।

খালা এই প্রথম আমাকে গালে একটা চুমু দেয় আর বলে, তাইতো আমি তোর কাছে নিরাপদ।

নিরাপত্তাতো আর সুখ দেয়না খালা। তোমার দরকার একজন মানুষ যে তোমার সাথে এক বিছানায় শুয়ে থাকবে। জড়িয়ে ঘুমাবে। হাতের কাছে থাকবে।

খালা আমাকে বলে, আমি একটা কথা বলি শান্ত
তুই আজ আমার সাথে ঘুমাবি। তোরে জড়িয়ে ধরে সেইদিনের মত ঘুমাবো।

সেটা কি উচিত হবে খালা?

আমি চাই। এখন তোর ব্যাপার।

না খালা আমার মনে হয় এখন আমি যাই। তুমি গিয়ে ঘুমিয়ে যাও বলে আমি রুমে চলে যাই।

প্রায় ত্রিশ মিনিট পর আমি খালার দরজার কাছে আসি। দিখি দরজা খুলা। আমি ভেতরে ঢুকে যাই আর বিছানায় উঠে খালার চাদরের নিচে শুয়ে যাই। খালার টিভিতে লাল ছবি চলছে। খালা সেটা অল্প পরেই বন্ধ করে বলে, তুই এই দেখে একটু দেখ আমার কাপড় নাই গায়ে।

আমি বলি খালা চাদরের নিচে তোমার কাপর আছে কি না সেটা আমার বিষয় না। তুমি সব অবস্তায় আমার কাছে সমান। লাগবে না কাপড়।
কি বলিস। না কাপর পরে নেই।

খালা বললাম না লাগবে না।

তুই পারবি কাপর ছাড়া আমার সাথে শুইতে?

আমি সাথে সাথে গেঞ্জি আর শর্ট পেন্ট খুলে খালার টিভির সামনে ফেলে দেই। এইবার হয়েছে।

এইবার সমান সমান। কিন্তু সমস্য তোর বেশি হবে।
কোন সমস্য নাই আমার। আমি খালাকে জড়িয়ে ধরে বলি, মুভি কি দেখবে আরো না ঘুমাবে।।

তুই দেখলে আমি দেখবো।

ছাড় দেখি আজ অগ্নি পরিক্ষা দিব।

পরিক্ষায় পাশ আর পরিক্ষা লাগবে না।
টিভিতে বিছানায় ফেলে পুরুষটা বেদম টাপাচ্ছে।।মহিলা আহ আহ আহ শব্দে ভিল্লাচ্ছে। মনে হচ্ছে পিষ্টন।

খালা একটু নড়ে বলে নারে, টিভিটা বন্ধ করে দেই। তুই আবার কি করিস ঠিক নাই। যে ভাবে নড়াচড়া করছে এই মহিলাকে দেখে।

সমস্যা হল তোমার টা দেখা যায়না আর আমারটা দেখা যায়। আর তোমার মত এত সুন্দরী মেয়ে কাপড় ছাড়া থাকলে আশি বছরের বুড়া সাপ জিতা হয়ে যাবে।
কি করে বুঝি সেটা আমার জন্য নাকি টিভির জন্য।

খালা পর্দায় কল্পনায় কাজ করে। আর পাশেই রক্ত মাংসের প্রভাব। এইবার তুমিই বুঝে নাও। আর কি করে বুঝলে তুমি।
বুঝবো মানে ফিস ফিস শব্দ করছে। ঘরে কি সাপ আছে নাকি?

আমি একটু ঘুরতেই একটা কিছু আমার গায়ে লাগে তাই হাত দিয়ে চাদরের বাহিরে নিয়ে আসি। এইটা কি খালা বলে আমি দেখেই প্রিজ হয়ে যাই। ভাবতেও পারিনাই চাদরে নিচে রাবারের সোনা।

খালা আমার হাত থেকে খিপ করে নিয়ে লজ্জা পেয়ে যায়। আর বলে আমি গোপনে খোজছি গেল কই। তুই কথা নাই বার্তা নাই হঠাৎ চলে আসলি।
আমি সহজ করতে বলি, অসুবিধা নাই। আমিও করি। আমি যাই তুমি শেষ কর। যদি চাও চাদরের নিচে করতে পার আমি পাশেই আছি। টিভি চালিয়ে দাও কোন অসুবিধা নাই।

তুই পাশে শুয়ে থাকতে পারবি। তোর ইচ্ছা হবে না আমাকে ধরতে।

আমি থাকতে পারবো। তোমাকে ভালবাসি। সম্মান করি। সেক্সুয়াল চিন্তা আসবে না। এমন ভিডিও আর পাশে ন্যাকেড যেকোন মেয়ে থাকলেও ইচ্ছা হবে ধরতে কিন্তু সেটা আমি করবো না। সম্মানের জন্য।

খালা টিভি অন করে দেয়। চুপচাপ পরে থাকে আর বলে, দেখি তুই কি করিস।

অল্প পরেই খালা, রাবারের শুনা ঢুকিয়ে দিয়ে শুরু করে দেয়। একটা পা মাঝে মাঝে আমার গায়ে লাগছে হাতের নাড়াচাড়ার জন্য। আমিও আমার সোনায় হাত দিয়ে ম্যাসেজ করি। আমি এক সময় বলি, এই মেয়ের দম আছে। সব কিছুই পারে।

আমার কথার পরপরই খালা, আহ আহ করে ভাংগা ভাংগা গলায় বলে, এই কাজে সবার দম লাগে। পাশের সাইড ড্রয়ারের উপর রাখা টিস্যুর প্যাকেট থেকে টিস্যু নিয়ে নিজে মুচে নেয় আর বেশ কয়েকটি টিস্যু আমাকে দিয়ে বলে, লাগবে নাকি।

আমি উঠে গায়ের চাদর নিয়ে উঠে যাই। দোড় দিয়ে বাথরুমে চলে যাই আর খালার গায়ে কিছুই নাই।

খালা বলে, শান্ত শান্ত কি করছিস। আমি বাথরুমে গিয়ে হাতে সেম্পু নিয়ে ভাল করে খেচে মাল বাহির করে ধুয়ে ফিরে আসি। টিভি বন্ধ আর খালা আর একটি চাদর গায়ে শুয়ে আছে।
খালা বলে, তুই জানিস আমার গায়ে কিছু নাই তবু চাদর নিয়ে চলে গেলি

খালা সরি, আমি কিন্তু তোমার দিকে চাই নাই।
খালা বলে, আমি দেখছি তুই চাস নাই। এখন কাপড় পরে নে আর আমরা শুয়ে যাই। কথা বলার দরকার নাই। আমরা কাপড় গায়ে দিয়ে শুয়ে যাই। সকাল বেলা ঘুম ভাংগে দেখি খালা আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে। খালার দুইটা দুধ আমার মুখের সামনে। আমি খালার গালে হাতিয়ে দিয়ে বলি, খালা সকাল দশটা বাজে উঠ।
খালা চোখ খুলে বলে, আমার অনেক আগেই ঘুম ভেংগে গেছে। তোর জন্য অপেক্ষা করছিলাম। দেখছিলাম কি শান্ত ভাবে ঘুমিয়ে আছিস।

আমরা উঠে রেডি হয়ে সহিদ ভাইকে ফোন দিলে তিনি নাস্তা নিয়ে আসেন।

বুধবারে ফ্লাট রেজিষ্ট্রি করে আমরা অফিসে ফিরে আসি। আমি কিছু কাজ নিয়ে খুব ব্যাস্ত সময় পার করি। কানাডায় একটা শিপমেন্ট নিয়ে ঝামেলা করেছে কার্গো কোম্পানি সেটা সামাল দিয়ে একটু অবসর হতেই রিসেপশনিস্ট মেয়েটা কল দিয়ে বলে, ম্যাডাম আপনাকে ডাকছে।

আমি রুমে ঢুকতেই দেখি স্কাইপে খালা বায়ারের সাথে কথা বলছে। কথা শুনে মনে হচ্ছে বায়ার খালার সাথে ফ্লাটিং করছিল। ফান করছিল। খালা আমাকে কাছে যেতে ইশারা করে কাছে যেতে বলে, আমাকে দেখয়ে বলে মিষ্টার জনসন দিস ইস মাই বয়ফ্রেন্ড। মোর হ্যান্ডসাম দেন ইউ। খালা হাসতে থাকে। আমি শুধু বলি হ্যালো মিষ্টার জনসন।

জনসন বলে, আই লাইক ইট মিস।
আই উইল লেট ইউ নো টমোরো।বাই নাও।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top