অয়নের দিনরাত্রি পর্ব ১

This story is part of a series:

অয়নের সময়টা কিছুদিন ধরেই ভাল যাচ্ছে না। বাড়ীতে পরীক্ষা নিয়ে বাবা মার সাথে অশান্তি আর ওদিকে রিয়ার সাথে বাইরে। বন্ধুদেরকে বাইরেরটা বলা গেলেও বাড়িরটা কাকে বলবে ভেবে না পেয়ে একা চাপার চেষ্টায় ভুগছে। অয়ন মানে আমাদের এই সিরিজের মেন চরিত্র অয়নাংশু সেন এবারে ক্লাস ১১ থেকে ১২ এ উঠেছেন বেশ কবার ফেল করার পর। তাই তার বাবা তাকে ৮ জন গৃহশিক্ষকের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন যাতে তার সোনার টুকরো ছেলেটি এবার উচ্চমাধ্যমিকে উতরে যায়।

কিন্তু তিনি এটা জানেন না যে তার এহেন আয়োজনে তার (হবু) ছেলের বউ নিতান্তই অতিষ্ট হয়ে উঠেছেন। সদ্য ক্লাস ৯ পাশ করে ওঠা রিয়াদেবীর এখন মনে হচ্ছে তার বাবুটি তার হাত থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছে তাই তিনি রোজ এখন স্কুল যাওয়ার আগে তার বাবুর এক বন্ধুর সাথে রাস্তার ধারের বাশবাগানে যান বাবুকে নিয়ে আলোচনা করতে। এসবের মধ্যে অয়ন বাবাজি পড়েছেন মহা ফাপড়ে। তার মধ্যে এসে জুটেছেন মিস. লিসা না কে একজন। তিনি নাকি অয়নকে পড়াবেন ইংরেজি। এতদিন প্রনব বাবুর দয়ায় সেটায় নম নম করে অয়ন দিব্বি উতরে যেত কিন্তু তার বাবার মনে হয়েছে এই নিতান্ত অপগোণ্ড ছেলেটির জন্য আরো একটি দরকার। যাইহোক সন্ধ্যে বেলায় যখন তিনি এসে দরজার সামনে দাড়ালেন ততক্ষনে অয়ন আর অয়নের ছোট ভাই দুজনেই লাফিয়ে উঠল মনে মনে। ম্যামের সাথে পড়তে বসে অয়নের মনে হল সে যা পরছে তা সবই জানা জিনিস।

প্রথম প্রথম কিছু না বললেও পরের দিকে একি জিনিস পড়ানোর ব্যাপারটা অয়নের কাছে প্রচন্ড বিরক্তিকর লাগতে লাগল। সেটা লিসা মনে হয়ে খেয়াল পড়ল। অয়নের মা বাবা সন্ধ্যেবেলা বেড়িয়ে যান গুরুদেবের সান্নিধ্য পেতে। অয়ন আর লিসা ম্যাম থাকে বাড়িতে একা। এরকমই একদিনে অয়ন বসে ম্যামের দেওয়া কাজ গুলো করছে এমন সময় হঠাৎ লিসা বলে উঠল তার একবার বাথরুমে যেতে হবে। অয়ন নিজেকে আটকানোর চেষ্টা করেও পারল না। লিসা উঠে চলে যাওয়ার পর সেও তার পিছু পিছু দাড়াল।

অয়নদের বাথরুম একটু আলাদা ধরনের সামনে কোনো দরজা নেই। ভিতরে একটা আলাদা জায়গায় ল্যাট্রিনের জায়গা বাকিটা খালি খালি। একটু পুরোনো বাড়ি গুলোয় এরকম দেখতে পাওয়া যায়। লিসা সোজা ভিতরে ঢুকে গেলে অয়নের দেওয়ালের সাথে নিজেকে সাটিয়ে দাঁড়িয়ে দেখতে লাগল। লিসা ভিতরে গিয়ে কাপড়টা আস্তে করে নিজের গা থেকে ফেলে দিল, তারপর একটা একটা করে আবরন খসে পড়তে লাগল। অয়নের ধন বাবাজিও একটু একটু করে ফুসে উঠে নিজের উত্তেজনার জানান দিতে লাগল।

চোখের নিমেষেই অয়ন তার চোখের সামনে এরকম একটা জাদরেল মালকে কাপড় ছাড়া দেখে কেমন যেন একটা করে উঠল। লিসার বয়স বড়জোড় ২৪ ২৫। দুধগুলো একটু ছোট হলেও সুপুষ্ট আর নিটোল। ফর্সা গায়ের রঙের সাথে হাল্কা বাদামি বোটাগুলো যেন শরীরের আগুনটায় ঘী ঢেলে দিচ্ছে। পাতলা কোমড় আর একদম টানটান পেটের মেদহীন চামড়া দেখে বোঝা যায় শরীর প্রতি যত্নের কোন ত্রুটি রাখে না লিসা। অয়ন চট করে ফোনটা বার করে ভিডিও করতে লাগল।

লিসা নিজের দুধের কটা ছবি তুলে আবার জামা কাপড় পরছে দেখে অয়ন টুক করে কেটে পড়ে ঘরে এসে বাধ্য ছেলের মত বসে পড়ল। লিসা এসে বাকী পড়িয়ে চলে যাওয়ার পর অয়ন ফোনটা বার করে বসল হাতের কাজ করতে। লিসার বাইরে বেড়িয়ে মনে পড়ল আজকে ফিস দিয়েছিল অয়ন সেটা নেওয়া হয়নি। দরজা এমনি বাইরে থেকে দেওয়া আর নাড়াতে ব্যাস্ত অয়নের না আটকানোয় লিসা সোজা ঘরের পাশে এসে দাড়াল। জানলা দিয়ে খাটের দিকে চোখ পড়তে থমকে গেল। “বাবা কি বড় এইটুকু ছেলেরটার”, মনে মনে বলে উঠল। কিন্তু নিজের সাধকে সামলে বাইরে থেকে ডাকল অয়নের নাম ধরে। অয়ন চমকে উঠে ছিটকে গিয়ে সামলে নিয়ে ভয়ে ভয়ে জবাব দিল,” হ্যাঁ, দিদিভাই বলুন!”
“একটু আসব? একটা জিনিস ভুলে গেছি!”, লিসা বলল।
” হ্যাঁ, আসুন না!”,অয়ন বলল।
লিসা এসে খামটা নিয়ে মুচকি হেসে চলে গেল।

কিছুদিন পর অয়ন নিজের ঘরে বসে আছে। পাশের ঘরে বাবা মা বেশ জরুরি কিছু বলছেন তার আওয়াজ পেয়ে অয়ন কান পাতল।

বাবা,”নাহ এই মেয়ের দ্বারা হবে না। শুধু শুধু!”
মা,”কেন আবার কি করল?”
বাবা,”সুভাষ বলল এ নাকি কাজের এদিকে এবারের ইউনিটেও বাবু ধেড়িয়েছে। ভাবছি এই মাসটা বলে ছাড়িয়ে দেব। ওই প্রনববাবুই থাক!”
মা,”আচ্ছা যা ভালো বোঝ। বাবুকে একবার জিজ্ঞেস কোরো।”

অয়ন আর কিছু বলল না। এমনিও তার খুব একটা লাভ তার হয়নি। তাই কি হল না হল তাতে তার কিছু এসে যায় না। সেদিন পড়াতে এসে লিসার মুখ ভার। অয়ন বুঝল বাবা তাকে কথাটা বলেছেন। লিসা তার দিকে তাকিয়ে বলল,” একটা কথা বলব তোমাকে?”
অয়ন বলল,”হ্যাঁ বল!”
“তোমার কি আমার কাছে পড়তে ভালো লাগে না?”
“কেন?”

“আজকে তোমার বাবা বলেছেন এ মাস পড়িয়েছে ছেড়ে দিতে। আমার এই টিউশনটা খুব জরূরী। তুমি একবার বল যে আমার কাছে পড়তে ভালো লাগে না!”
“নাহ তা না আসলে মাথায় থাকে না কিছু যা পড়ি ভুলে যাই।”
“তুমি একবার বলবে? তাহলে এটা যাবে না!!
“আমি আর বলে কি করব!”
“একবার বল না। যা বলবে তাই করব!”
“যা বলবো তাই?”
“বিশ্বাস হচ্ছে না? আচ্ছা চোখ বন্ধ করো।”
“মানে?”
“করোই না!”

অয়ন চোখ বন্ধ করল। লিসা নিজের শাড়ির আঁচল ফেলে দিয়ে ব্লাউস আর ব্রা-এর হুক গুলো খুলে দিল আর তার নরম মাঝারি দুদু গুলো লাফিয়ে বেড়িয়ে এল। তারপর অয়নের কাছে উঠে এসে তাকে হাল্কা ঠেলে শুইয়ে দিল।
“ম্যাম, কি করছেন?”
“নাহ চোখ খুলবে না!”
তারপর আস্তে আস্তে অয়নের প্যান্টটা নামিয়ে দিতে হাল্কা শক্ত বাড়াটা বেড়িয়ে এল। লিসা আস্তে আস্তে সেটাকে নিজের নরম হাতের মধ্যে নিয়ে ডগায় একটা চুমু খেল। তারপর আস্তে আস্তে সেটায় নিজের জিভটা বোলাতে লাগল।
“কি অয়ন বাবু কেমন লাগছে?”
“খুব ভালো!”

লিসা এবার অয়নের শক্ত হয়ে যাওয়া প্রায় আধ হাত সমান বাড়াটা নিজের মুখে নিয়ে চুষতে শুরু করল। অয়ন আর পারল না চোখ খুলে ফেলল। তার সামনে তার বাড়ার উপর ঝুকে পড়া দজ্জাল ইংরেজি ম্যাডাম তার খোলা দুধ জোড়া নিয়ে একমনে অয়নকে ব্লোজব দিচ্ছে পর্ন এর মত। অয়ন লিসার মুখের ওপর পড়া চুলগুলো তুলে একহাতে করে তুলে সুখ নিতে লাগল। লিসার নরম ঠোটের গরম ছোয়া আর ধারালো জিভের ছোবলে জীবনে প্রথম ব্লোজব পাওয়া অয়ন লিসার একটা দুধ খামচে ধরল আনন্দে। লিসার সাথে বেশীক্ষন পারল না অয়ন। তার মুখেই বীর্যপাত করে এলিয়ে গেল। লিসা খানিক থুথু করে ফেলে মুখটা শাড়ির আঁচলে মুছে অয়নের ওপর শুয়ে বলল,”এবার বলবে তো?”
অয়ন একবার মাথা নাড়ল।
“এই তো লক্ষী ছেলে।”, বলে লিসা খিল খিল করে হেসে উঠল।

ক্রমশ.

এই গল্পটি সম্পর্কে মতামত জানাতে বা আমার সাথে যোগাযোগ করতে হ্যাংআউট ও মেল করুন-
[email protected]

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top