এক সাহিত্যিকের রঙিন জীবন- তৃতীয় পর্ব

দ্বিতীয় পর্ব

বিক্রম জুন ভট্টাচার্য র কথা মতন নন্দিনী কে বিছানায় সন্তুষ্ট করবার জন্য নিজের বেস্ট টা দিচ্ছিল। নন্দিনী কে তার নিয়মিত শয্যা সঙ্গিনী বানানোর জন্য নিজের সেরা এফোর্ট তাই দিচ্ছিল। নন্দিনীর মতন সুন্দরী বিত্তশালী নারী যাতে ওর হাত থেকে বেরোতে না পারে, সেই চেষ্টার কোনো কসুর করছিল না। সারারাত ধরে নন্দিনীর শরীর টা কে উঠলে পাঠলে আদর করলো আর সেই সঙ্গে প্রাণ ভরে নন্দিনীর পূর্ণ যৌবন টা রীতিমত চুটিয়ে উপভোগ ও করলো। নন্দিনী নেশার ঘোরে আর যৌনতার উত্তেজনায় বাধা পর্যন্ত দিতে পারল না।

নন্দিনী সেই রাতে এতটাই গরম হয়ে উঠেছিল হুশ খুইয়ে বিক্রম কে নিজের সব কিছু খুলে দিয়ে দিয়েছিল, ওয়াইন এর নেশায় এতটাই মত্ত ছিল যে বিক্রম কে সারা রাত ধরে ইচ্ছে মতন আদর করবার লাইসেন্স দিয়েছিল। বিক্রম নন্দিনীর থেকে পূর্ণ সহযোগিতা পেয়ে যৌনতা কে একটা চরম সুখের স্তরে পৌঁছে দিলো। সেই সাথে নন্দিনীর শরীরের কোন জায়গায় কটা তিল আছে সব কিছু ভালো করে দেখে চেখে নিল নিজের ঠোঁট দিয়ে।

নন্দিনীর শরীর কে বিক্রম এমন ভাবে যৌনতার জন্য চাগিয়ে তুলেছিল যে নন্দিনীর মতন শিক্ষিত ভদ্র রুচিশীল নারীও এক প্রকার পাগল হয়ে উঠেছিল। প্রথমে স্লো স্টার্ট করলেও আস্তে আস্তে সেক্সের গতি আর প্যাশন দুটোই চরম পর্যায়ে পৌঁছে গেল। পরিস্থিতি তার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে বুঝতে পেরে, নন্দিনী মরিয়া হয়ে বিক্রম কে রুখবার শেষ চেষ্টা করেছিল। সে বিক্রম কে তার যোনির দখল নেওয়া থেকে আটকে বললো, ” আর না এইবার থামো … পারছি না আমি।”

বিক্রম নন্দিনীর ঐ প্রতিরোধ হেলায় সামলে নিয়ে বললো, ” আমি জানি তোমার মতন নারী এত অল্প টে কিছুতেই সন্তুষ্ট হতে পারে না। এসো আমার সামনে কোনো লজ্জা পেও না। আজ যতক্ষণ পারবো ততক্ষণ তোমাকে আনন্দ দিয়ে যাবো।” ” তুমি কতদিন sex করো নি আগে বলো না।” বলে, নন্দিনী কাপতে কাপতে জবাব দিল, পাঁচ বছর আগে শেষ বার করেছিলাম স্বামীর সঙ্গে….” বিক্রম নন্দিনী র বুকের ভাজে চুমু খেতে খেতে হলো ” উফফ তোমার মতন হট লেডি এতদিন না করে থাকতে পারলে বলো তো? এখন আমি এসে গেছি তোমার যত্ন নেব।” ভেজা যোনির ভেতর আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিয়ে নন্দিনীর কোমরের ভাজে মুখ গুজে দিয়ে চুমু খেতে খেতে বিক্রম ওকে একবারে পাগল করে তুলল। নন্দিনী এরপর আর বিক্রম কে আটকাতে পারলো না। তার শরীরের অন্য এক এর পর এক রাউন্ড সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স করে করে বিক্রম রা পুরো এক প্যাকেট কনডম শেষ করে ফেলেছিল, শেষে ক্লান্ত হয়ে ভোরের দিকে ওরা দুজনেই সাদা চাদরে নিজেদের নগ্ন শরীর টা ঢেকে একে অপরকে জড়িয়ে ঘুমিয়ে পড়ল।

পরদিন বেলা সাড়ে এগারোটা নাগাদ নন্দিনীর ঘুম ভাঙলো অদ্ভুত এক যৌন তৃপ্তি ভরা আবেশ নিয়ে নন্দিনী চোখ খুললো।চাদর টা নিজের নগ্ন শরীরে জড়িয়ে বিছানা ছেড়ে উঠবার মিনিট খানেক এর ভেতর জুন ভট্টাচার্য ঐ রুমের ভেতর এসে তার আগের রাতে পর পুরুষের সঙ্গে শুয়ে ভদ্র নারীর স্ট্যাটাস হারানোর জন্য নন্দিনীর কপালে চুমু খেয়ে “কনগ্রাচুলেশন সুইটহার্ট” বলে অভিনন্দন বার্তা জানালেন। আরো বললো, ” কিরে বলেছিলাম না বিছানায় বিক্রম দারুন খেলে… মন ভরেছে তো?” নন্দিনী লজ্জায় মুখ দিয়ে শব্দ বের করতে পারলো না। জুন দি ওর হাতে গরম চায়ের কাপ তুলে দিয়ে আরো বলতে লাগলো, নন্দিনী প্রথমবারের জন্য এসে পুরো বিষয় টা যেভাবে হ্যান্ডেল করেছে পুরো বিষয় টা, তাতে উনি নাকি ভীষন গর্ব অনুভব করেছেন।

গতকাল রাতে শব্দ শুনে একবারও নাকি বোঝা যায় নি এটাই নন্দিনীর ফার্স্ট টাইম। ঘুম ভেংগে নিজেকে নগ্ন অবস্থায় বিক্রমের মতন পুরুষের সঙ্গে শুয়ে থাকতে দেখে নন্দিনীর নিজেরই নিজের উপর বেশ নোংরা গিলটি ফিলিংস আসছিল। তারপর জুন ম্যাডাম এর অভিনন্দন জানানো পেপ টক শুনে নন্দিনী লজ্জায় রাঙা হয়ে উঠলো। জুন দি ” আর লজ্জা পেতে হবে না। ইউ আর এ চাম্পিওন অন বেড । এটাই মেইনটেইন করে যেতে হবে বুঝলি, তাহলেই তোর লাইফ আনন্দে ভরে যাবে হাঃ হাঃ হাঃ। চল ফ্রেশ হয়ে নে। বাইরে আমরা তোর জন্য অপেক্ষা করছি।”

জুন ম্যাডাম ও আদিত্যর সাথে গতকাল রাতে চুটিয়ে যৌনতা উপভোগ করেছে তার বিবরণ , আর ভবিষ্যতেও করবে শুনে নন্দিনী কিছুটা আশ্বস্ত হলো। আর ওর মনের গিলটি ভাব টা খানিক টা দুর হলো। নন্দিনী জুন এর কথা শুনে এই এফেয়ার বাইরের লোক এর কাছে ফাঁস হবে না জেনে নন্দিনীর অস্থির মন খানিকটা শান্ত হলো। ব্রেকফাস্ট এর পর, জুন ভট্টাচার্য বলতে লাগলো যে আজকাল মডার্ন ডে সমাজে এইভাবে এক বা একাধিক পার্টনারের সাথে বিছানা শেয়ার করা, আর পর পুরুষ কে দিয়ে নিজের শারীরিক যৌন চাহিদা মেটানো খুব নর্মাল একটা বিষয়। এটা নিয়ে মনে বেশি সংকোচ না থাকা টাই আজকের আধুনিকা স্মার্ট নারীর চরিত্রের পক্ষে বেশি মানানসই, মধ্যবিত্ত মানসিকতা ধরে রেখে নিজেকে কষ্ট দেওয়ার কোনো মানেই হয় না , তার থেকে নিজেকে পুরুষ দের কাছে খুলে দিলে সুখে জীবন ভরে যাবে।

লোধসূলি তে প্রথম দিন ওদের চারজনের বেশ দারুন ভাবে মস্তি টে কাটলো। সারাদিন একসাথে ভালো খাওয়াদাওয়া থেকে শুরু করে, এছাড়া প্রচুর মদ আর সিগারেট খেয়ে মজা করে ওরা সময় কাটলো। স্নান সেরে নন্দিনী তার সাধারণ শাড়ী ব্লাউজ এর বদলে লোধাসুলির ট্রিপের আগে নতুন কিনে আনা একটা হট সেনসেশনাল স্লিভলেস নাইট ওয়ার পড়ে বিক্রমের হাত ধরে ফার্ম হাউস টা ঘুরে দেখল। বিক্রম ফার্ম হাউসের বাগানে জায়গায় জায়গায় সুযোগ বুঝে নন্দিনীর সঙ্গে রোমান্স করলো। জুন ভট্টাচার্য র কথা শুনে নন্দিনী অদ্ভুত এক ঘোরে থাকায় বিক্রমের আদরে কোনো বাধা দিল না। লাঞ্চ এর পর থেকে জুন আর আদিত্য বেশির ভাগ সময় নিজেদের বেডরুমের ভেতরেই কাটালো। সন্ধ্যে বেলা মদ্যপান এর সাথে আড্ডা মেরে একটু তাড়াতাড়ি রাতের খাবার সেরে তাড়াতাড়ি বিছানায় যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল। জুন বিক্রম আর আদিত্য দের পাল্লায় পরে নন্দিনী ও ওদের মতন ই শুতে যাবার আগে পুরো নেশায় বুদ হয়ে উঠেছিল। সারাদিন তো বটেই, এমন কি সন্ধ্যার পর ও বিক্রম কে তার প্রাইভেট পার্টস এ টাচ করবার ওপেন পারমিশন দিয়ে রেখেছিল।

জুন নন্দিনীর এই স্পোর্টিং জেসচার দেখে ভীষণ ইমপ্রেস হয়েছিল। ইতিমধ্যে নন্দিনী মদ আর যৌনতার স্বাদ পেয়ে একটা ভালো গল্পের প্লট পেয়েছে শুনে জুন ম্যাডাম বলে উঠলো
“এই তো, গল্পের নায়িকা প্রথমবার মদ ধরেছে, এই বার আসল উপন্যাস শুরু হবে , হা হা হা… বিক্রম সত্যি সত্যি দারুন ম্যাজিক জানে! এক রাত শুয়ে নন্দিনী কে মদ ধরিয়ে দিল আমরা মাসের পর মাস চেষ্টা করেও পারি নি।”
তারপর টলতে টলতে বিছানায় এসে নন্দিনী খুব ডেসপারেট ভাবে নিজের ড্রেস খুলে ফেলে বিক্রমের শরীর এর সামনে আরো একবার নিজেকে সারেন্ডার করে দিল।

নন্দিনীর মস্তিষ্ক ওকে বাঁধা দিলেও শরীর মস্তিকে র সাথ দিচ্ছিল না। শেষ অবধি কাম উত্তেজনা র জয় হলো। নিষিদ্ধ প্রেমের জোয়ারে ভেসে যাওয়া থেকে নিজেকে আর আটকাতে পারলো না। বিক্রম নারী দের শরীর আর ইমোশন নিয়ে খেলার ব্যাপারে একজন এক্সপার্ট হওয়ায় নন্দিনী কে ২ য় রাতেও বিছানায় একটি বারের জন্য ও নর্মাল হতে দিল না। বরংচ আরো খোলাখুলি যৌনতা উপভোগ করলো। নন্দিনীর সেনসিটিভ স্পট গুলোতে স্পর্শ করে বিক্রম ওকে বেশ তাড়াতাড়ি গরম করে তুললো।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top