একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ৯

একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প –৮

অমানুষিক পরিশ্রম টানতে টানতে অবশেষে জয় গাড়িটাকে নিয়ে এল হাভেলীর প্রাচীরর বিশাল লৌহদ্বারটার সামনে |নীতা প্রহরীকে ইঙ্গিত করতেই প্রহরী দুজন বিস্মিত চোখে খুলে দিল দরজাটা |সম্ভবত নিজের সীমাহীন প্রভুত্ব জানান দিতে নীতা তার হাতের লম্বা চাবুকটা সজোরে আছড়াল জয়ের শরীরে |চাবুকটা তীব্র শীষ তুলে জড়িয়ে ধরল জয়ের দীঘল শরীরটাকে|জয়ের গলা দিয়ে একটা জান্তব চীতকার বেরিয়ে এল|প্রায় সর্বশেষ শক্তি সংহত করে জয় গাড়ীটা টেনে নিয়ে গেল ভেতরে|নীতা গাড়ী থেকে নামতেই একজন রোগা চেহারার লোক এগিয়ে এল|নীতা কঠিন স্বরে হুুকুম করে,রতন , এই বেয়াদব জানোয়ারটাকে নিয়ে য়া , এবার থেকে ও ওই ডানদিকের ফাঁকা আস্তাবলটায় থাকবে আর আামার ঘোড়াগুলোকে দেখভাল করবে|

হাভেলীর ভেতর থেকে হঠাত একটা শোরগোল শোনা গেল|একটু পরেই বেরিয়ে এল শিউচরণ…বিনীত ভঙ্গীতে উত্তেজিত স্বরে বলল,মালকিন,হাভেলীর দক্ষিণের তিন নম্বর গেটটার পেছনে একটা লোক সন্দেহজনকভাবে ঘোরাঘুরি করছিল,ওকে পাহারাদারেরা ধরেছে|নীতা অস্থির গলায় জিগ্যেস করে,লোকটা কে,কোথা থেকে এসেছে কিছু বলেছে?শিউচরণ বলে,না,মালকিন…লোকটা কিছুই বলছে না,ওর ব্যগ ঘেঁটেও কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায় নি…মনে হয় সীমান্ত এড়িয়ে পালিয়ে এসে কোনোভাবে ঘুরতে ঘুরতে এখানে চলে এসেছে |

নীতার মাথায় বিদ্যুতের মতো এক পরিকল্পনা খেলে যায়…ও হুকুম করে শিউচরণকে,’ওটাকে গুমঘরে আটকে রাখ..আমি পরে দেখছি ওটার মুখ থেকে কোনো কথা বের করা যায় কিনা’ ; চলে যেতে গি়য়েও ফিরে আসে নীতা,বলে,আর শোন ওই অতীন ছোঁড়াটাকে পাঠিয়ে দে…আমাকে ম্যাসেজ করিয়ে দেবে’|নীতা বেডরূমে ঢূকে সমস্ত কিছু খুলে একটা শিফনের নাইটি পরে এসে বসে হেলানো চেয়ারটাতে়…অতীন এসে দাঁড়ায়|অতীনকে ইশারায় কাছে আসতে বলে নীতা…

এখানে একটু অতীনের সাথে সকলের একটু পরিচয় করিয়ে দি;না আমার মনে হয় প্রথাগতভাবে পরিচয় না দিয়ে বরং নীতাম্যাডামকে লেখা ওর হবু স্ত্রী রেহেনার চিঠিটা লুকিয়ে পড়ে ফেলি আমরা, তাহলেই আশা করি আমাদের কাছে সব কিছু পরিষ্কার হয়ে যাবে….

||রেহেনার চিঠি||

মাননীয়া নীতা ম্যাডাম,আমি রেহেনা|বিভিন্ন মাধ্যমে আপনার মুক্ত ফেমডম রাজ্যের কথা যত পড়ছি ততই অবাক হচ্ছি…কি অসামান্য দক্ষতায় অগণিত নারীর মনের কথা আপনি বুঝেছেন আর তাকে সার্থক রুপ দেবার জন্য চেষ্টা করে চলেছেন ক্রমাগত |না শুধু পুরূষের উপর নিরংকুশ আধিপত্য করতে চাওয়া মহিলাই নয়,আপনি বুঝেছেন অসংখ্য মর্ষকামী পুরুষেরও মনের সুপ্তকামনাকে..যারা চায় কোনো মহিলার দ্বারা নিগৃহীত হতে ,চায় তীব্র অবদমন,সীমাহীন যন্ত্রণা…সেই সব পুরুষদের চোখে আপনি আদর্শ মিস্ট্রেস….তাদের অনেকেই যৌন পত্রিকার পাতায় হান্টার হাতে আপনার ছবি দেখে হস্তমৈথুন করে প্রতিদিন…আপনার স্বর্ণত্রিভূজে একবার মুখ রাখার সুযোগ পেতে তারা জীবন বাজী রাখতেও রাজী..

এবার আমার কথায় আসি | আমি এক বহুজাতিক সংস্থায় উচ্চপদে কাজ করি|আমার ঈর্ষণীয় আয় আর শরীরী সৌন্দর্য দেখে অনেক পুরূষই স্ত্রী হিসেবে পেতে চেয়েছে আমাকে…পরিচয়ের প্রথম পর্বেই যখন জেনেছে যে ওদের চাকরী ছেড়ে, প্রকৃতপক্ষে স্বামীত্বের যাবতীয় অধিকার ছেড়ে আমার বিশাল ফ্ল্যাটটায় কৃতদাসের জীবন কাটাতে হবে,আর এগোয় নি;না,অবশ্য এগিয়েছিল একজন…ওকে অবশ্য আমার শর্তগুলো জানাই নি তখনো…বেশ সপ্রতিভভাবে আমার সাথে তার বিবাহ-পরবর্তী উজ্জল জীবনের ছবি আঁকতে আঁকতে একসময় ঢুকে পড়েছিল আমার বিরাট বেডরুমটায়…তারপর বেডরুমের দেওয়ালে আংটায় ঝুলতে থাকা আমার প্রিয় লাল হান্টারটা দেখে বিস্ময়ে হতবাক হয়েছিল ও…..তখন আমি ওকে বলেছিলাম আমার ফেমডম-মিস্ট্রেস হিসেবে আমার বিবাহ-পরবর্তী পরিকল্পনার কথা….একটু আসছি ,বলে সেই যে বেরিয়ে গিয়েছিল..আর ফেরেনি|

অবশ্য অতীন ওদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা|প্রথম পরিচয়েই সুন্দর সুগঠিত দেহের অধিকারী এই তরুণকে বেশ বাধ্য আর বিনীত মনে হয়েছিল|পরে বুঝেছি,আমার মতো সুন্দরী ,সুচাকুরীরতা মেয়ে ওর চোখে স্বর্গের দেবীর মতো,যার পায়ের কাছে বসে তার হুকুমের দাস হিসেবে ও কাটিয়ে দিতে পারে সারাজীবন| ও আমাকে বলেছে ওর স্বপ্ন-সুন্দরীর কথা,যার হাতে ধরা আছে একটা লিকলিকে চাবুক,যে কারণে-অকারণে যন্ত্রণা দেয় তার ক্রীতদাসকে ,নিংড়ে নেয় তার হাসি,সারা শরীরে আঁকে সুতীব্র যন্ত্রণার ছবি|

বিকেলের মৃদু আলোয় এক ঝিলের পাশে বসে ওর কথা শুনতে শুনতে অবাক বিস্ময়ে ভেবেছি কি করে পরিচয় হলো আমাদের..ওর স্বপ্নকে ,স্বপ্নে দেখা নারীর ছবিকে বাস্তবরুপ দিতে পারি তো আমিই…আমিও তো সেই কোন বালিকা-বেলা থেকেই মনের কল্পনায় এঁকেছি সেই আমার পায়ের কাছে হাঁটুমুড়ে বসা সেই পুরুষের ছবি, যার সারা শরীর নিবেদিত হবে আমার পূজায়…যার ভোরের ঘুমভাঙা থেকে গভীর রাতের নিদ্রা জুড়ে থাকব আমি….

ম্যাডাম,আমি আগামী বছরে বিয়ে করতে চাই অতীনকে|এই বিয়েটা হবে ফেমডম মতে এক সুদীর্ঘ চলচ্চিত্রের মতো যার প্রতিটি দৃশ্য আগামী একবছরে বুনে তুলব আমি এক কুশলী চিত্রনাট্যকারের মতো,যার বর্ণনা সমস্ত ফেমডম-আদর্শে নারী-পুরুষের কাছে আদর্শ বলে মনে হবে..

বিয়ের পরেই ও ছেড়ে দেবে ওর সামান্য মাইনের চাকরিটা….ওর আত্মীয়-পরিজনদের কাছে শেষবারের মতো বিদায় নিয়ে এসে ঢুকবে আমার ফ্ল্যাটে(ওর চেনা জানা মানুষদের সাথে দেখা করতে আর কখনো যাবে কিনা সেটা নির্ভর করবে সম্পূর্ণ আমার মর্জির উপর),সারাদিন ধরে সাজাবে আমার বিরাট ফ্ল্যাটটাকে আর ভাববে আমার কথা….
অফিসে বসে আমি যখন চেষ্টা করব কঠিন কোনো সমস্যার সমাধানের, ও তখন তৈরী করবে আমার পছন্দের কোনো খাবার,সাজিয়ে রাখবে আমার ওয়াড্রোব,পালিশ করে চকচকে করে তুলবে আমার জুতোগুলোকে, আমার রাতের পরা নাইটি ,ব্রা আর প্যা্ন্টিটাকে পরিষ্কার করবে নিজের হাতে ;বাথরুম থেকে রান্নাঘর ,সর্বত্রই থাকবে ওর কুশলী পরিপাটী হাতের ছোঁয়া…অফিস যাবার সময় আমার পছন্দের পোষাক পরতে সাহায্য করবে ও,আমার পায়ে চুমু এঁকে আমার পছন্দের জুতো পরিয়ে দেবে ও…ম্যাডাম আপনার মতো আমিও মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি,একদিন মেয়েরাই শাসন করবে এ পৃথিবী,পুরুষেরা দাসত্ব করবে তাদের,এভাবেই সমস্ত পৃথিবী হয়ে উঠবে সুন্দর,সুগঠিত|

আমার ইচ্ছে অতীন আমাকে সাজিয়ে তুলুক আমার খুশীমতো,প্যাডিকিওর-্ম্যানিকিওর,সারা শরীরে ম্যাসেজ, আমাকে স্নান করায় সাহায্য করা ইত্যাদি যাবতীয় কাজ ও করুক পেশাদারী দক্ষতা নিয়ে যাতে ওর প্রতিটি কাজ আমাকে দিতে পারে তীব্র আনন্দ,দেয় মানসিক ও শারিরীক প্রশান্তি|

ও শিক্ষিত করে তুলুক নিজেকে পরিপূর্ণভাবে,আমার শরীরের প্রতিটি বিন্দু চিনে নিক ও ভালোভাবে,মনে রাখুক সেই বিন্দুগুলো যেখানে ও আঙুল ছোঁয়ালে আমার সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়বে তীব্র উন্মাদনা, ও শিখুক চিনতে আমার চরম আনন্দের ক্ষণকে ,ও চেষ্টা করুক প্রত্যেক মিলনে আমাকে দিতে সেই চরম আনন্দের ছোঁয়া|

ম্যাডাম আমি চাই সম্ভব হলে আপনি নিজে প্রশিক্ষিত করে তুলুন ওকে,এর জন্য যত টাকা লাগুক আমি দিতে রাজি আছি|জানেন ম্যাডাম আমি বিশ্বাস করি,একজন নারীকে সার্বিকভাবে সুখী করা,তার যৌন-ক্ষুধা মেটানো ছাড়া একজন পুরুষের অধিক কিছু থাকতে পারে না| একজন পুরুষ যদি শ্রম দিয়ে,মেধা দিয়ে,তার শরীরকে উতসর্গ করে যদি সুখী করতে পারে তবে সেটাই হবে তার চরম প্রাপ্তি|হ্যাঁ ম্যাডাম,ও আমাকে চুমু খেলে আমি যদি খুশী হই ,তবে ও তাই খাবে আদর্শ প্রেমিকের মতো;আবার আমি যদি চাই ওর নগ্ন শরীরে আমার কালো হান্টারটা দিয়ে একটা লাল রং-এর ছবি আঁকতে,ও ওর শরীরটা মেলে ধরবে আমার সামনে ক্যানভাসের মতো|আমি চাই আপনার শিক্ষায় ও সম্পূর্ণ শিক্ষিত করে তুলুক নিজেকে একজন যৌনদাস হিসেবে|আমার ফেমডম রাজ্যে ওই হবে আমার একমাত্র প্রজা আর আনি হবো ওর রাণী| আগেই বলেছি ওর এখনের চাকরিটা ছাড়িয়ে দেব আমি | সচরাচর একজন পুরুষকে তার জীবনধারণের জন্য, তার পরিবারকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সারাদিনের প্রায় অনেকটা সময় ব্যয় করতে হয়,শ্রম দিতে হয় -এ সমস্ত থেকে সম্পূর্ণ মুক্তি দেব আমি|

অফিস থেকে বাড়িতে ঢুকেই আমি ছুঁড়ে দেব আমার অফিস ব্যাগটা,গিয়ে বসব আমার হেলানো চেয়ারটাতে ,ও দৌড়ে এসে হাঁটু মুড়ে এসে বসবে আমার পায়ের কাছে,নিবিড় ভক্তিতে কোলে তুলে নেবে আমার পাদুটো,ধীরে ধীরে ম্যাসেজ করবে ও,কখনো চুমু খাবে দুই পায়ে|পরম আরামে শরীরটাকে চেয়ারের গদিতে আরো এলিয়ে দিয়ে ইঙ্গিতে খুলতে বলব ওর জাঙিয়াটা|এরপর আমার বাঁপাট আলতো ছোঁয়াবো ওর দণ্ডটায়় |(চলবে)

লেখিকা্-অরুণিমা

গল্প কেমন লাগছে ? অনুগ্রহ করে মন্তব্য করুণ…..

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top