কালো টাইলস পড়া সেই মেয়েটি ৩

This story is part of a series:

যত গতি বাড়ায় ততই মেহেতাও আঁকড়ে ধরে খামচে লোকটার গণ্ডারেরে মত চামড়ায় দাগ বসানোর অপ্রাণ চেষ্টা। কিন্তু এতে কিছুই হয়না লোকটা আরও ভিতরে নিয়ে যায় নিজের সমস্ত শক্তি। মেহেতাও ঘামতে থাকে সাথে ওর শ্বাস প্রশ্বাস ভারী হতে থাকে। ওর মনে হয় এখনি কিছু একটা হবে অদ্ভুত অনুভূতি। লোকটাকে জোরে আঁকড়ে ধরে আর হা করে উঠে।

লোকটা কালো মোটা সরু ঠোঁট দিয়ে চুষে নেয় একটি গোলাপি নরম ঠোঁট যা এখনো অনেক সাবধানে চায় চুমুক দিয়ে গেছে। মেহেতার আসলে শরীর ভারী হয়ে আসছে মনে হয় কিছু একটা হবে না বুঝতে পারলেও একটা ঝাঁকুনি দিল পুরো শরীরকে লোকটার সাথে কেঁপে উঠল। এদিকে মেহেতার উরুতে রক্তের প্রবাহমানতা লোকটাও ওর স্তন পিষে ধরে করেই যাচ্ছে এক পর্যায়ে দৈত্যর মত হাঁপর করতে করতে লোকটা চরম মুহূর্তে পৌঁছাল।

মেহেতা ওর মধ্যে কিছু একটার অস্তিত্ব বুঝতে পারল যা একটু পর উরু বেয়ে গড়িয়ে পড়লে আরও বিশদ বুঝতে পারবে । লোকটা ওর উপরই পড়ে যেন একটা যুদ্ধ শেষের পর বিশ্রাম। মেহেতা ঘারমক্ত মুখ আর এলো চুল নিয়ে লোকটার নীচে শায়িত। ওর উরুদেশে সাদা সাদা আঠালো বীর্য রাস্তা তৈরি করে যাচ্ছে।

রক্ত আর এই বীর্যর এক যোগসূত্র হল যেন ওর যোনিদেশের কালো ঘন কেশে। মেহেতা এবার সরতে চাইল একটু কিন্তু লোকটা দিল না ওকে চেপে ধরে চুমু খেল। মেহেতাও খেল কেন জানি সম্ভবত এ এক আদিম প্রবণতা কামের মতই । চাঁদের সাদা আলোতে দুই নর নারী শায়িত জোস্নায় শুভ্র লাগছে। এক পাসে মেহেতার সানগ্লাস আলোকে প্রতিফলিত করছে।

আর ছেড়া ব্রাটা অদূরে অযত্নে পড়ে যেন একটা তীব্র বাসনার অন্তিম সাক্ষী সে। মেহেতা অনেকক্ষণ ঘুমিয়ে ছিল উঠে আবিস্কার করল লোকটা নেই। নিজেকে উলঙ্গ আর ছিন্নভিন্ন অবস্থায় দেখল। ছেড়া ব্রাটা দিয়ে রক্ত আর বীর্য সাফ করল। তারপর উঠে দাঁড়াতে চেষ্টা করল কিন্তু একটু কষ্ট হলো প্রচণ্ড ব্যাথা অনুভব করল তলপেটে।

এরকম দৈত্য উফফফ মেহেতা ভাবল কোথায় অদৃশ্য! বাহিরে একটা টিউবওয়েল পেল সেখানে নিজেকে ধুয়ে নিল। টাইলস একটু ছিরে গেলেও ঢেকে নিল জামা দিয়ে। হাঁটতে কষ্ট হওয়ায় বড় রাস্তায় এসে রিকশা নিয়ে নিল। রিকশাওয়ালা লোকটা ওরিদিকে আড়চোখে তাকাল। মেহেতা ঠোঁটে আর গলায় লোকটার কামড়ের দাগ ঢেকে নিল।

কিন্তু বাসায় মাকে ফাঁকি দেয়াই এখন ঝামেলার। মারা এসব আগে খেয়াল করে তাই বুদ্ধি করে বাজার থেকে লিপস্টিক কিনে নিল রিকশাতেই লাগিয়ে নিল ঠোঁটে। বাসায় ফিরে অবশ্য মার সামনে পরতে হল না যেহেতু ছোট ভাইকে নিয়ে ব্যাস্ত মা। ঘরে ঢুকেই বাথরুমে ঢুকে পড়ল মেহেতা। সব খুলে আয়নায় দেখল নিজেকে পুরো শরীরে বুনো মহিষের আঁচর আর কামড়ের চিহ্ন ।

যদিও ভালো করে গোসল করলে সাফ হবে। মেহেতা আগে ওর নধর শরীরটাকে ধরে দেখল যে শরীর এতদিন ধরে সযত্নে রেখেছিল তা আজ এভাবে এক অজানা অদ্ভুত এক লোকের কাছে বিসর্জন গেল। অনেক শক্ত প্রকৃতির হওয়ায় কেঁদে দিল না মেহেতা। নিজেকে শক্ত করতেও পারল না আসলে ওর মানসিক অবস্থা টালমাটাল নিজেই জানেনা সামনে কি।

তবে এতটুক পণ করল অন্য দশটা মেয়ের মত হেরে যাবে না বা ভেঙ্গে পড়বে না। সোফায় সাবান মেখে উরু থেকে শুরু করে রক্ত বীর্য মাখা যোনি ঘষল। তারপর হলুদ শরীরটার সব সাফ করল ফেলা তুলে। যেখানে একটু আগে থাবায় মুঠো হয়ে কামড়ে কামড়ে শিক্ত হয়েছে এখন সেখানে নরম স্পর্শে ফেনা উঠল।

ধুয়ে মুছে শরীরটা আবার আগের মত হয়ে উঠল। চুল ধুয়ে মেহেতা টাইলসটা কেচে গোলাপি মেক্সিটা পড়ে নিল। রাতে খেয়ে বিছানায় গেলেও ঘুম আসল না। আজক খাবার সময় বরাবরের মত কারো সাথে কথা বলল না। বরং একটু আগেই খেয়ে নিজের ঘরে এসে পড়ল। ওর ঘরটা একটু আলাদা সবার থেকে। টিনের হওয়ায় গরম ঠাণ্ডা অনুভুত হয় সমানে সমান।

শরীরটা প্রচণ্ড ব্যাথা লাগছে বিশেষ করে তলপেট। এমন দৈত্য বহন করা যেন তেন কথা নয়। মেহেতার পাতলা গোলাপি মেক্সির ভিতরে যেন এখনো সেই শিহরণ কি এক দিন গেল । ভাবতেই ওর গায়ে কাটা দেয় মনে হচ্ছে একটু পর যেন আবার আসবে লোকটা। বা এখনি হয়ত এই রুমে কোথাও লোকটা লুকিয়ে ওর ঘুমানোর অপেক্ষায় তারপর ঝাঁপিয়ে পড়বে।

নাহ এই লোক কি করে বাসা চিনবে ধুর। এসব ভাবতে ভাবতে ও একগেয়ে হয়ে সানি লিওনির পানিবালা দেখে নিল। নিজেকে সানির জায়গায় ভাবল এরকম এক পরিস্থিতিতেও ওর বর্ণীল ভাবনা। সানি লিওনি যেন জলকেলি খেলছে না বরং মেহেতা খেলছে। পাশে সব পুরুষ ওকে ওরশিপ করছে লাস্টি উরু নিয়ে বিকিনি পড়ে ও নেচে যাচ্ছে এসব ভাবতে ভাবতে ফোন ওপেন রেখেই কখন যেন ঘুমিয়ে পড়ল নিজেও জানে না।

সকালে উঠেই কলেজে গেল কিছুই ভালো লাগল না। মুড রটেন হেঁটেই ঘেমে বাসায় ফিরল মেহেতা। খেয়ে ঘুমিয়ে গেল মার ডাকে ভাঙল। ‘’ কিরে স্যারের কাছে যাবিনা ‘’ মেহেতা মুখ চোখ একটু বিস্ময়সূচক করে উঠল সামলে নিয়ে বলল ‘’ যাবো রেডি হই’’।

মা জানতে চাইল কাল কেন দেরী হইসে কি বলবে বুঝতে পারল না মেহেতা। পরে বই কেনার কথা বলতে হল খুজতে দেরী হইসিল। ওর মার যেন একটু কেমন অপছন্দ লাগল কথাটা ‘’আচ্ছা যা রিকশা নিয়ে চলে আসিস’’ বলে চলে গেল। মেহেতা এবার ঝটপট টাইলস জামা পরে নিল। রাশে ব্রা ট্রা পড়া হল না আজ।

কোনমতে চশমা লাগিয়ে চুল বেঁধে বেড়িয়ে পড়ল এদিকে ওর মাথায় নেই যে ওই লোকটা আজো অপেক্ষায় ওর একি জায়গায়। আজ খুব বৃষ্টি টানা গরমে বোধহয় একটা স্বস্তি। মেহেতার বৃষ্টি প্রিয় হওয়ায় ছাতা নিতে মনে ছিল না একটু ভিজে রিকশা নিল। যদিও রিকশা ওকে স্টেশনে নামিয়ে দিয়ে চলে গেল। পরের রাস্তা খুব খারাপ তাই।

আজ দুই টিউশন একটা ফিজিক্সের পরে তাই দেরী হতে পারে বাসায় জানে। মেহেতা মাঠের আইল ধরে হাঁটতে লাগল কর্দমাক্ত আর বৃষ্টি এখনো ঝরছে। ওর পুরো শরীর ভিজে চপচপ। ঠিক এইসময় জুতোটাও ছিরে গেল। ধেৎ রাগে ওর মুখ লাল হয়ে গেল। খালি পায়ে কতদূর যেতে পারবে বুঝতে পারল না। কাঁদা মেখে এগোতে লাগল দুপাশের পাটগুলো বেশ বড় এটা আগে খেয়াল করেনি মেহেতা আজ করল একটু ভয়ও হল কিন্তু কি করবে, এগোতে লাগল সব মনে পড়ল আবার সেই বাড়ি সেই লোক।

এদিকে ভিজে একাকার বাড়ীটির সামনে এসে পড়ল। মনে হতে লাগল বাড়ীটি যেন আসবে না। অবশেষে সেই বাড়ি আর বৃষ্টিও প্রলয় রুপ ধারন করল যেন সবাই সন্ধি করেছে লোকটার সাথে। ব্রাহীন স্তন ভিজে জামার সাথে লেপটে গেল। টাইলসের মধ্যে যোনিতে অদ্ভুত শিহরণ হল যখন একদ০ম বাড়ীটির সামনে পড়ল মেহেতা। লোকটা সামনে দাঁড়ানো। ও কিছু বলার আগেই ওকে তুলে পাঁজকলা করে এবার একদম দোতলায় সিঁড়ি বেয়ে নিয়ে গেল। মেহেতা অবাক নয়নে লোকটাকে দিনের আলোতে দেখল।

দোহারা গড়ন কালো মাথায় কোন চুল নেই। ছয় ফুটের একটু কম হাইট, মোটা আর পেটানো শরীর। গালের উপরে একটু কাটা দাগ। হাতগুলো লম্বা আর শক্ত। দেখেই মনে হল খুব মজবুত লোক। ওকে একটি ময়লা পরিত্যাক্ত চৌকীতে নিয়ে ফেলল। লোকটা পরনে একটি ঢিলে শার্ট আর প্যান্ট। লাল চোখে ওরদিকে চাইল। মেহেতা কাঁপছিল কোন শব্দ বের হল না শুধু ওর পড়নের পরিচ্ছেদের পানি টপটপ করে পরার শব্দ ছাড়া।

লোকটা এবার ওকে অবাক করে দিয়ে দুম করে ওর টাইলস খুলে ফেললে এক টানে দু পা ফাক করে ফেলে। মেহেতা হা করতে গিয়েও পারল না এবার ওকে চুল ধরে টেনে এনে চুমু খেল প্রায় ২ মিনিট তারপর এক ঝটকায় ওর ভিজে জামাটা হলুদ পেলব শরীর থেকে খুলে নিল। মেহেতা এখন শুধু চশমা পরিহিত এক উলঙ্গ তরুণী যে দুই হাতে স্তন ঢেকে বসে।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top