কালো টাইলস পড়া সেই মেয়েটি ৪

This story is part of a series:

নীচে যোনিকেশ চিকচিক করছে বৃষ্টির পানিতে শরীর থেকে ঝরে পরায়। লোকটা আর দেরী করল না খপ করে ওর দুই পা সরিয়ে নিয়ে যোনীতে লেহন দিতে লাগল, উরুর দুইপাশ কামড়ে কামড়ে ব্যাথা দিতে লাগলো। মেহেতা কাতরাতে কাতরাতে শীৎকার দিতে লাগল এই প্রথম সুখের না অসহায়ত্বর বুঝা গেল না।

এখনো ওকে চশমা পরিহিত দেখে লোকটার গোপনাঙ্গ শিবলিঙ্গ হয়ে গেল। চুল ভেজা হলুদ সফেদ শরীর পানিতে সিক্ত স্তনের বৃন্ত কেমন তাকিয়ে। লোকটা আর পারল না আবেগ লুকাতে চুমু খেল ওকে তুলে এনে অতর্কিত। মেহেতা শুধু নিজেকে নিবেদন ছাড়া কি করবে বুঝতে পারল না এই বুনো মহিষের সাথে। যে শুধু কামের উত্তাপ মেটায় আর ওর দেহ সেই উত্তাপের তীব্রতা দমন করে। মেহেতাকে চুমু খেতে খেতে ওর সুডৌল নিতম্বে চটকাতে থাকল বিশ্রীভাবে। নখের দাগ বসিয়ে দাবনায় আঙ্গুল দিতে লাগল।

এদিকে মেহেতার শ্বাস প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে আসল এমন চুমুতে। জিহ্বা পর্যন্ত লেহন দিচ্ছে। ওকে এবার উপুর করে শোয়াল লোকটা নিতম্বে বেশ কামড় আর চুমুতে ভরিয়ে দিল। দাবনাটা দুই আঙ্গুল দিয়ে দুইদিকে ছড়ানোর চেষ্টা করল এতে ওর মলদ্বার খুলে আসল রক্তিম। মেহেতা কাঁতরে উঠল একটু ব্যাথায় কিন্তু বাঁধা দিতে পারল না দেখতে চাইল কৌতূহল কি করে।

লোকটা ওর মলদ্বারের ভিতর জিহ্বা দিল চুষতে লাগল। অদ্ভুত এক সুগন্ধ মেহেতার পায়ুপথে সম্ভবত নিয়মিত এখানে ওর পরিষ্কার রাখার ফল। এই খেটে খাওয়া মজুর শ্রেণীর লোকের খুব মজা হল এমন এক মেয়েকে যাকে বলে ‘’ পুটকিতেও সুগন্ধ যাদের দেখে এসেছে ওদের দাঁরা চালিত বা শোষিত হয়েছে আজ তার এই ঘেমো পুটকি কামড়ে লাল করে দিবে’’।

লোকটা এবার তীব্র উত্তেজনায় মেহেতা চশমা খুলতে গেলে লোকটা চুল ধরে ওকে আবার পড়িয়ে দিল। মাথা এক পা দিয়ে পিষে ধরে লোকটা ওর নিতম্বে সজোরে কষাঘাত করতে থাকলো। এরকম ঝড়ো বৃষ্টিতেও এই চড়ের শব্দ আন্দোলিত করল। মেহেতা একেকটা চড়ের উত্তর দিল লাল চোখ আর নাকে পানি ফেলে উফফফফফ তীব্র ব্যথা থামানোর উপায় নেই।

বুনো শক্ত পেটানো লোহার পাতের মত হাত সেই চামড়ার একেকটা চড় ওর মোলায়েম হলুদ নিতম্বটাকে রক্তিম আভাময় করে তুলছিল। মেহেতার মনে হল এই নিতম্ব কখনো স্পর্শ দূরে থাক ভাবেওনি একে এই রুক্ষতা বা নির্দয়তা নিতে হবে। ওর চোখ মুখ দিয়ে দরদর করে শুধু ঘাম ঝরছিল। লোকটা একটানা এভাবে চড় কষিয়ে থেমে ওকে ঘুরাল এবার স্তন দুটোকে খাবলে ধরল।

দলাই মলাই করলো আর চুষল মেহেতা শিহরিত আর শীৎকার করছিল আদিম পুরাণের যৌনদেবী দাহিলার মত। লোকটা বৃন্তটাকে কামড়ে কামড়ে বুঝিয়ে দিচ্ছিল এসবের মালিক আমি একমাত্র। মুঠো করে ধরে তুলে বৃন্ততে কামড় বসায়। এদিকে টগবগিয়ে উঠেছে যন্ত্র এখন এর কাজে লাগানো চাই। সামনেই ঘর্ষণ খাচ্ছে সুচারু জংগলের।

লোকটা এখন কুমারীত্ব হারানো এক নারীর মধ্যে প্রবেশ করবে। যাকে নিজেই সে নারী করেছে। কিছুক্ষন চেষ্টার পর মেহেতা উঠে এসে দেখল কিছুতেই ঠিকমত যোনীতে যাচ্ছে না। মেহেতাও কেমন বিরক্ত হয়ে লোকটাকে সাহায্য করল প্রবেশ করাতে এই প্রথম কোন পুরুষাঙ্গ ধরবে আগে এমনিতে পর্ণতে দেখেছে শুধু। কালো মোটা রকেটের মত এক লিঙ্গ ওর সামনে।

মাথাটা খুব পরিষ্কার আর নিকষ কালো যেটা অনেক অলি গলি বা পচা ময়লার সামনে বের হয়েছে। সেই জিনিস কে মেহেতা ধরে সেট করে নিল। লোকটা এবার ধিরে ধিরে অগ্রসর করল। অদ্ভুত শিহরণ দুজনের মধ্যেই কেমন স্বর্গীয় আর বিচ্ছিন্ন সবকিছু থেকে। ওরা দুজন দুজনকে জড়িয়ে করে যাচ্ছে আর ভুলেই গেছে বাইরে প্রচণ্ড ঝড় বয়ে যাচ্ছে যেখানে এক গাছ ভেঙ্গে গেছে বাজারে কারো বাড়িতে পানি ঢুকে প্লাবিত বা কারো ফসল শেষ।

ওরা যেন দুজন এক আত্মা। সব ভুলে এক ঘোরে বন্দী দুজন। শুধু মেহেতা চশমা পরিহিত হয়ে ঘামছে আর লোকটাকে দেখছে কি তীব্র শক্তি নিয়ে ওকে কম্পিত করছে। ওর যোনির ভিতরটা ভেদ করে ওর পেটে আঘাত করছে রকেট। ও আর পারল না জল খসিয়ে নিল কত পারা যায় কেঁপে উঠল শরীরটা। লোকটাকে অজান্তেই চুমু খেল কালো মুখটায় লোকটার ঘামে বিবর্ণ পিঠে চটকে ধরল। কামড়ে দিল ঘাড় গর্দান। লোকটাও পুলকিত হয়ে ওকে চুমু খেল গভীর।

এবার লোকটাকে কামনার উচ্ছলতার তীব্রতার আবেশে বলে উঠল ‘’ কি বড়ড়ড়ড়ড়ড় উফফফফফ জোরে করো …… মজা লাগে না …… করো … ইচ্ছামত করো … আমায় তোমার রানী বানাও’’

লোকটা জবাব দিল ‘’ রানী না বেশ্যা তুই মাগি আমার ‘’ বলে আহহহহহ করে আরও গতি বাড়াল।

মেহেতার ভিতরটা জলে উঠছিল এদিকে বৃষ্টি অনবরত জানান দিচ্ছে কোন ভাবনা নেই তোমাদের এই শব্দ এখানেই থাকবে। মেহেতা লোকটার ঘাম আঙ্গুল দিয়ে মুছে দিল চুমু খেল চোখ আর মুখে। লোকটা এবার চশমা পরিহিত এই কামের উদ্দীপনায় মেতে উঠা আদিম নারীর যৌনতৃপ্ত মুখ দেখে আর পারল না চেপে রাখতে বীর্য। ঢেলে দিল ওর বেশ্যা মাগীর যোনীতে যা ওর বুনো রকেটের তপাতে অনেকটাই খুলে গেছে। দিয়েই লোকটা জোরে শীৎকার করল , মেহেতা এবার জড়িয়ে ধরে গর্দানে চুমু।

লোকটাও মেহেতাকে চুমু ঠোঁটে। এবার ওর চশমায় কেন জানি লোকটা চুমু খেল। মেহেতাড় খুব ইচ্ছে হল লোকটার অণ্ডকোষ ধরে দেখার কখনো ধরে দেখেনি । লোকটির অণ্ডকোষ প্রচণ্ড পুরু চামড়ার আর শক্ত। এখনো লোকটার বীর্যপাত হওয়া লিঙ্গ প্রায় ৬ ইঞ্চির মত। মেহেতা ধরে তাজ্জব এটা বড় হয়ে কিভাবে ঢুকেছে ওর মধ্যে। ভেবেই পায়না এদিকে লোকটা এখন ওর স্তন থেকে নেমে ওর একটু পুরো পেটের মাংস আর নাভির গর্তকে লেহন দিচ্ছে।

মেহেতা লোকটার মাথা চেপে রেখেছে লোকটা হলুদ মাখন বর্ণ শরীরকে সুন্দর করে চুষে চুষে খাচ্ছে যেন রসে টইটুম্বুর মেহেতা। মেহেতা আবেশে শ্বাস আর চাপা শীৎকার করছে। উহহহহহ কি সুখ …… মনে হচ্ছে সব ভুলে যাই দিন রাত …… খালি এভাবে তকাই আদিম নর নারী যেভাবে কামনায় বিভোর হয়ে পড়ে রইত কোন দূর পাহাড়ের কোনে বা জংগলের গহিনতায়। কি করছে এই বুনো ভারী জন্তুর মত লোকটা ওর গভীর নাভি নিয়ে চুষে চুষে ভিজিয়ে দিচ্ছে আবার পুরু হলুদ পেটের মাংস কামড়ে তুলে এনে ফেলে দিচ্ছে।

মেহেতা চোখ কুচকিয়ে শ্বাস আর শীৎকার করে যাচ্ছে। লোকটা এবার ওকে কোলে বসাল। দুজন দুজনকে জড়িয়ে রেখে কোলে বসে চুমুতে বিভোর হল। মেহেতা এখনো চশমা পড়ে লোকটার নীরব আদেশ বুঝতে পারল। চশমা পরাতে মেহেতাকে অন্যরকম লাগছে তাও এমন উলঙ্গ অবস্থায়। মেহেতা ভাবতে লাগল নিজেকে চশমা পরেই এভাবে যদি বের হতো রাস্তায় নিজেরই হাসি পেল নিজের কল্পনায়।

কিন্তু লোকটা চশমাতেই চুমু খেল তারপর ওর যোনিকেশে চুমু খেল বিলি কেটে দিল। মেহেতা এবার লোকটাকে আবেশে আর উত্তেজনায় কাছে টেনে নিয়ে শুইয়ে উপরে উঠে লোকটাকে নিয়ে যৌনলীলায় মেতে উঠল। লোকটার বুনো চামড়া লেহন দিতে লাগল। লোকটার নিম্নাঙ্গ পর্যন্ত লেহন দিল একদম নীচে লোকটার পুরুষাঙ্গকে চুমুতে বর্ষিত করল।

তারপর লোকটাকে সারা মুখে কামড়ে আর চুষে ঠোঁটে চুমু খেতে লাগল আর লোকটাও এবার পাল্টা ওকে ধরে ঝটকায় ঘুরিয়ে নিয়ে ফেলে চুমুতে ভরাতে লাগল। এবার লোকটা ওর যোনিতে কামড়াতে লাগল মেহেতা না করলে এই প্রথমবার শুনল লোকটা চুষল মেহেতা হাত দিয়ে লোকটাকে আদর করে দিল। লোকটা ওর যোনির পাতলা আবরণে চুমুতে ভরিয়ে দিল।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top