মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – তৃতীয় পর্ব

This story is part of a series:

মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – দ্বিতীয় পর্ব

আমার ফাইনাল এক্সাম শেষ হওয়ার পর, রেজাল্ট বেরোনোর আগে দুই -আড়াই মাস একটানা ছুটি পেয়েছিলাম, আমি এক্সামের পর একটানা অনেকদিন ছুটি পাওয়ায় আনন্দর থেকে সমস্যায় পড়ে গেলাম বেশি। আমি চেয়েছিলাম, ছুটি তে বাবা মার সাথে কোথাও একটা বেরিয়ে আসতে। বেশ কয়েক বছর একসাথে আমাদের কোথাও বেড়াতে যাওয়া হয় না। মা ও আমার আবদারে না করতে পারে নি, একসাথে ঘুরতে যেতে রাজি হয়ে ছিল কিন্তু বাবা শেষ মুহূর্তে সময় বের করতে পারলো না। ছুটিতে বাবা মার সঙ্গে ঘুরে বেরিয়ে আনন্দ করে কোয়ালিটি ফ্যামিলি টাইম স্পেন্ট করবার প্ল্যান করেছিলাম কিন্তু তার বদলে বাড়িতে থেকে প্রতিদিন মার পরপুরুষদের সঙ্গে প্রেম দেখবার নরক যন্ত্রণা সহ্য করে ছুটি কাটতে লাগলো।

আমার ফাইনাল এক্সাম চলা কালীন মা শর্মা আঙ্কেল এর সঙ্গে বিন্দাস মুডে পাটায়া ঘুরে এসেছিল। যাওয়ার আগে, নিজের সৌন্দর্য বাড়াতে নন্দিনী রায় সালনে গিয়ে ফুল বডি ওয়াক্স করে এসেছিল। যার ফলে মায়ের ত্বক আরো বেশি আকর্ষনীয় হয়ে গেছিলো। এরপর আর যত্র তত্র স্লিভলেস অফ শোল্ডার ড্রেস পড়তে তার আর কোনো বাধা রইল না। প্রচুর অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ফটো ও তুলেছিল। মার আপত্তি থাকা সত্ত্বেও শর্মা আঙ্কেল তার থেকে বাছাই করা কিছু ফটো প্রিন্ট ও করিয়েছিল।

নিজের এক ঘনিষ্ট বন্ধু কে দিয়ে ছবি গুলো প্রিন্ট করানোর পর, একটা বড় ব্রাউন কলরের এনভেলাপ খামে সেই অশ্লীল ছবি গুলো ভরে মা কে সারপ্রাইজ দিতে স্পীড পোস্ট করে দেয়। পার্সেল পোস্ট টা যখন আসে, মা তখন বাড়িতে ছিল না। সোনালী আন্টির, যিনি বাবার এক নামী উকিল বন্ধুর স্ত্রী, তার সঙ্গে পার্লারে গিয়েছিল। আগে থেকেই ওদের পার্লারে ডেট বুক করা ছিল। মনোজ ও ঘরের কিছু জরুরী জিনিস কিনতে মার্কেটে গিয়েছিল। কাজেই ঘরে কেউ না থাকায় শর্মা আংকেলের পার্সেল টা আমি রিসিভ করি। এমনিতে আমি মার কোনো জিনিসে সাধারণত হাত দি না। কিন্তু সেদিন ব্রাউন কলরের এনভেলাপ প্যাকেট টা দেখে ভিতরে কি আছে সেটা জানবার জন্য ভীষন কৌতূহল হয়।

শেষে আমি আমার কৌতুহল চাপতে না পেরে নিজের ঘরে এসে ব্রাউন কলোরে র খাম টা খুলেই ফেলি। খুলে দেখি ভিতরে একটা রঙিন কাগজের মরকে প্যাক করা একটা সুন্দর ফটো অ্যালবাম। তাতে থরে থরে মা আর আংকেলের সব পাটায়া ভ্রমণের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি সাজানো আছে। ওখানে সর্ব মোট ২০ টা ফটো ছিল। বেশির ভাগ মার সলো অর্থাৎ একার তোলা। সেই সব ফটো দেখে আমার পেটের ভেতর টা ঠান্ডা হয়ে গেলো। হাত কাপতে লাগলো। কান গরম হয়ে গেলো। আমি দেখে স্তম্ভিত হয়ে গেলাম। মা আঙ্কেল এর সঙ্গে ফার্ম হাউস ঘুরে আসবার কয়েক সপ্তাহ বাদে তার সঙ্গে ৭ দিনের পাটায়া টুরে যেতেও রাজি হয়ে ছিল। পাটায়া ঘুরতে গিয়ে মার এক ভালো পরিবারের গৃহ বধূ হিসেবে যত টুকু ইজ্জত বাকি ছিল সেটাও হারিয়ে গেলো।

শর্মা আংকেলের মতন মানুষের সফর সঙ্গী হিসেবে তাকে ঐ সাত দিন যা নয় তাই সহ্য করতে হয়েছিল। এমন কি শর্মা আঙ্কল কে মনোরঞ্জন করতে ব্যাক লেস টপলেস হয়ে অশ্লীল সব ছবিতে একের পর এক পোজ দিয়েছে। শর্মা আঙ্কল এর বিকৃত রুচির পরিচয় আমি এই ভাবে হাতে নাতে পাবো কল্পনাও করতে পারি নি। শর্মা আঙ্কেল এর পাঠানো সারপ্রাইজ প্যাকে দুটো ফটো এমনও ছিল যাতে মা পাটায়ার একটা নামী ফাইভ স্টার হোটেলের ডিলাক্স সুইটের বিছানায় সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় পর্ণ ফিল্ম এর নায়িকা দের ভঙ্গিতে হাতে একটা সবুজ রঙের ডিলডো নিয়ে শুয়ে ছিল। ডিলডো তাতে রস লেগে ছিল ফটো টা দেখতে দেখতে আমার হাত কাপতে শুরু করেছিল। আমি বেশিক্ষন ধরে ওগুলো দেখতে পারলাম না।

মিনিট দুই দেখেই ফটো অ্যালবাম টা নামিয়ে রাখলাম, তক্ষুনি আমার ঘরের দেওয়ালে রাখা মার সুন্দর ফটোটার দিকে নিজের অজান্তেই চোখ চলে গেল। ওটা ছিল মার শেষ সঙ্গীত অনুষ্ঠানের স্মৃতিচিহ্ন। বছর পাঁচেক আগে তোলা। বাবাই মার ঐ সুন্দর ছবিটা তুলেছিল তারপর ফটো করে বাঁধিয়ে ছিল নিজের বেডরুমে রাখবে বলে । আমি বাবার সঙ্গে কিছুটা লড়াই করেই মার ঐ ফোটো টা নিজের ঘরের দেওয়ালে টাঙিয়ে ছিলাম। বাবা তখনও টাকার পিছনে এই ভাবে ছুটতে শুরু করে নি। আমাকে আর মা কে যথেষ্ট সময় সে দিতো। ছবিটার দিকে তাকিয়ে কত পুরনো কথা মনে পড়ে গেলো। মা বীণা বাজিয়ে কি সুন্দর নিবিষ্ট মনে গান গাইছিল সেদিন ঐ অনুষ্ঠান টায়।

ঐ কুরুচিপূর্ণ অশ্লীল ছবি টা দেখার পর মার অতীতের ঐ সুন্দর পবিত্র আনন্দময় মুহূর্তের ছবি টা দেখে আপনা থেকেই আমার চোখের কোনে জল চলে আসলো। পার্সেল টা যেরকম ভাবে এসেছিল ঠিক তেমন ভাবে গুছিয়ে প্যাক করে মার রুমের বেডসাইড টেবিলের উপর রেখে আমি নিজের ঘরে চলে আসলাম। ঐ ফোটো গুলো দেখার পর থেকে মার ভবিষ্যত সম্পর্কে আমি আরো বেশি করে আশঙ্কিত হয়ে পড়লাম। চোখের সামনে আমার মায়ের মতন সুন্দরী শিক্ষিতা রুচিশীল সম্রভ্য পরিবারের গৃহবধূর আস্তে আস্তে এইভাবে হাই ক্লাস সমাজের অন্ধকারে তলিয়ে যাওয়া দেখতে হলো। তাকে হাই ক্লাস সমাজের বড়োলোক ভদ্র মানুষের মুখোশ পরে থাকা অথচ নোংরা চরিত্রহীন মানুষ গুলোর হাত থেকে কিছুতেই উদ্ধার করতে পারলাম না। তাদের সম্মিলিত প্রয়াসে প্রতিদিন আমার মা নিজের নৈতিকতা মূল্যবোধ সব বিসর্জন দিয়ে, নীচে নেমে যাচ্ছিলো।

আমাদের ২৪ ঘন্টা সময়ের হাউস স্টাফ মনোজ এর সঙ্গেও মার অল্প সময়ে খুব ভালো রসায়ন গড়ে উঠেছিল। সে খুব স্মার্ট আর সক্ষম হয়ায় বাড়ির সব কাজ সুন্দর ভাবে করতো। বড়ো থেকে ছোটো প্রতিটি ব্যাপারে মা মনোজের উপর নির্ভর করতে শুরু করেছিল। মনোজ ভালো ম্যাসাজ করতে জানত। ম্যাসাজ দিয়েই ও মার কাছাকাছি এসে তার মন জিতে নিয়েছিল। প্রথম প্রথম দরজা খোলা রেখে বা ভেজিয়ে মনোজ ম্যাসেজ মা কে ম্যাসাজ দিতো। একদিন, আগেই বলেছি মা কে স্পেশাল ম্যাসাজ দেওয়ার বিষয়ে ইনসিস্ট করে ফেললো। ঐ স্পেশাল ম্যাসাজ টা ব্যাংককে ভীষন পপুলার। ওর আগের মালকিন মিসেস মালিয়া মনোজ কে দিয়ে নাকি শুধু এই ম্যাসাজ ই নিত। মায়ের মতন সুন্দরী বড়ো ঘরের বউ এর নাকি এই ম্যাসাজ খুব ভালো লাগবে। তবে এই ম্যাসাজ তার একটা বিশেষত্ব ছিল, এই ম্যাসাজ টা করতে গেলে যে ম্যাসেজ দিচ্ছে তাকে তো বটেই আবার যে শুয়ে ম্যাসাজ নিচ্ছে তাকেও সম্পূর্ণ ভাবে টপলেস হতে হবে।

এর আগে অবধি মা মনোজের সামনে ইনারওয়ার পড়েই ম্যাসাজ নিত। আমি প্রথম প্রথম শুনে ভেবেছিলাম মা এই ব্যাপার টায় ওর মুখের উপর না করে দেবে। কিন্তু পাটায়া থেকে ঘুরে আসার পর মার হাব ভাব কায়দা কানুন অনেক বদলে গেছিলো। তাই আমাকে অবাক করে মনোজের প্রস্তাবে খোলাখুলি ম্যাসাজ নেওয়ার বিষয়ে রাজি হয়ে গেল।

মা একদিন আমার সামনেই মনোজকে ডেকে বললো, ঠিক আছে চলো, আজ থেকে তুমি যা বলবে তেমন তাই হবে। আমি কিছুই না পরে তোমার সামনে থাকবো, আর তুমি তোমার হাত দিয়ে মাজিক দেখাবে, কি খুশি তো । চলো আমি টপলেস হতে রাজি আছি।” আমার উপস্থিতি তে এই ফুল বডি ম্যাসাজ মায়ের ঘরের দরজা খোলা রেখে নেওয়া সম্ভব কর ছিল না। তাই সেদিন থেকে মনোজ মা কে দরজা বন্ধ করে ম্যাসাজ দেওয়া আরম্ভ করলো। আগেই বলেছি, প্রথম যে দিন মনোজ মা কে ঐ স্পেশাল ম্যাসাজ দিতে দরজা বন্ধ করে মার রুমের ভেতরে ঢুকেছিল। সেদিন আমি ঐ ঘরের বাইরে থেকে ওদের কান্ড কারখানা বুঝবার চেষ্টা করছিলাম। ম্যাসাজ দিতে ঢোকার পাচ মিনিটের মধ্যে মনোজ নিজের প্যান্ট খুলে শুধু underwear pore মার উপর চড়ে বসে।

তারপর মনোজ মার পিঠের উপর উঠে নিজের বুক মার পিঠে ঘষতে ঘষতে মার বুকের পুরুষ্ট দাবনা গুলো ভালো করে হার্বাল তেল দিয়ে দলাই মালাই করতে শুরু করে দেয়। সেই সময় মায়ের শরীরে একটা লাল রঙের পাতলা প্যানটি ছাড়া আর কোনো পোশাক ছিল না। মনোজের হাতের ছোয়া নিজের সর্বাঙ্গে পেয়ে মা আস্তে আস্তে সুখের সপ্তম সাগরে পৌঁছে যায়, মিনিট পনেরো কুড়ি বাদে মনোজ মা কে ম্যাসাজ দিয়ে দিয়ে প্যান্টি ভিজিয়ে দেয়। তারপর বলে ওঠে ”

দিদি এইবার ম্যাসাজের অন্তিম পর্যায় শুরু হবে, আপনাকে এই বার পান্টি টা খুলে ফেলতে হবে। আর আমিও খুলবো, যখন যে মুহূর্তে আপনি অ্যাকওয়ার্ড ফিল করবেন, আমাকে বলবেন, আমি সাথে সাথে থামিয়ে দেবো । তো এখন আমি কি এই পান্টি টা খুলে এগিয়ে যাবো নাকি আপনি এখানেই শেষ করতে চাইবেন। চয়েস ইস ইউর ম্যাডাম” মা প্রথমে মনোজের কথায় কোনো জবাব দিলো না। চোখ বন্ধ করে ম্যাসাজের আরাম উপভোগ করছিল। শেষে যখন মনোজ যখন আরো একবার একই প্রশ্ন মা কে রিপিট করলো, মা একটু বিরক্ত হয়ে ওকে উত্তর দিল,” উহহহহহন ! না উফফ এত কথা বলছো কেনো মনোজ, যা খুলতে চাও খোলো না, কে তোমাকে আটকাচ্ছে।”

মনোজ অবাক হয়ে এই কথা শুনে মাকে জিজ্ঞেস করল, ” আপনি তার মানে সত্যি সত্যি কন্টিনিউ করতে চাইছেন।” মা রিপ্লাই দিলো, ” ইয়েস মনোজ, যা করছে, প্লিজ থামিও না!!! আমার শরীর টা তোমার হাতে তুলে দিয়েছি। যেমন ইচ্ছে তেমন ভাবে খেলো….” মনোজ এই উত্তর পেয়ে সাথে সাথে মায়ের পান্টি টা খুলে ফেলে দিল। তারপর তেল নিয়ে ভালো করে মা কে কখনো উপুড় করে বা কখনো সামনে এনে ভালো করে ম্যাসাজ দেওয়া আরম্ভ করলো। এরপর বুকের মাই এর উপর খাড়া হয়ে থাকা বোটা গুলো ভালো করে টিপতে টিপতে মনোজ আমার মা কে অল্প সময়ের ভেতর উত্তেজনার চরম সীমায় পৌছে দিয়েছিল। আর মাও মুখ দিয়ে সমানে যৌন মিলনের সময়ের শীৎকার এর মতন আওয়াজ বের করে যাচ্ছিল। শেষে আমি আর থাকতে না পেরে মায়ের ঘরের সামনে থেকে সরে যাই।

সেদিনই মা আর থাকতে না পেরে মনোজ এর সঙ্গেও ম্যাসাজ নেওয়ার পর , সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স করার মতন ভুল করে ফেলে। তারপর থেকে মা আর মনোজের বাড়ির ভেতরেই একই ভুল বার বার করার অভ্যাস হয়ে গেলো। মা ম্যাসাজ নিতে নিতে বাড়িতেই মনোজের সঙ্গেও অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ল। ম্যাসাজের বাহানায় দিনের বেলা তো বটেই মাঝে মধ্যে রাতের বেলা তেও মনোজ কে মা তার বেডরুমে ডেকে পাঠাতো। শর্মা আংকেল এর পর মনোজ ও বেশ চুপ চাপ মায়ের সুন্দর শরীর টা বেশ অল্প দিন এর ভেতর ভালো করে চিনে নিয়েছিল। মা কে খুশি করে সে তার মাইনে ও বাড়িয়ে নিয়েছিল।

শর্মা আংকেল তার কিছু ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের নিজে নেমন্তন্ন করে সন্ধ্যে বেলায় আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসতো। পাটায়া ঘুরে আসবার পর, এই বন্ধুদের আনাগোনা আরো বেড়ে যায়। আঙ্কল এর বন্ধুদের মধ্যে সঞ্জয় চৌধুরী নামে এক প্রবাসী বাঙালি ব্যাবসায়ী বেশ ঘন ঘন আমাদের বাড়িতে আসতেন। শর্মা আংকেলের সুবাদে এই মিস্টার চৌধুরীর সঙ্গে মায়ের বেশ একটা অন্যরকম বন্ধুত্ব পূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়।

এছাড়া অখিল নায়েক নামের আংকেল এর আরো এক বন্ধু ও মায়ের সঙ্গ পাওয়ার জন্য তার চারপাশে ঘুর ঘুর করতো। ঐ ব্যাক্তির বেশ বড়ো রিয়াল এস্টেট এর ব্যাবসা ছিল। তার খুব ইচ্ছে ছিল আমার মা যেনো ওদের সঙ্গে কাধে কাধ মিলিয়ে বিজনেস ফিল্ডে যোগদান করে। এই বিষয়ে ওরা সম্মিলিত ভাবে মায়ের ব্রেনওয়াস করাও শুরু করেছিল। একদিন সন্ধ্যে বেলা পাশের ঘর থেকে আঙ্কল দের কথা শুনছিলাম।

শর্মা আংকেল মিস্টার নায়েক আর মিস্টার চৌধুরী কে সেদিন সন্ধ্যে বেলা কোনো জরুরি বিষয়ে আলোচনা করার জন্য ডেকে এনেছিলেন। আঙ্কল রা সন্ধ্যে বেলায় আসবে আর একেবারে ডিনার সেরে মদ গিলে ফিরবে। তাই সেদিন যা নয় তাই ঘটার সম্ভাবনা ছিল। সেই ঘটনার আঁচ পেয়ে মা মনোজ আর সুদেব সহ সব হাউস স্টাফ দের আগে থেকে ২৪ ঘণ্টার ছুটি দিয়ে রেখেছিল। আর আমি খুব একটা নিজের ঘরের বাইরে বেরোই না সেটা মা ভালো করে জানত, আমাকে নিয়ে কোনো টেনশন ছিল না। আর আমার বাবা যথারীতি সেই সময় শহরের বাইরে ছিল। কাজেই আংকেল রা সেই দিন সন্ধ্যেবেলা আমাদের বাড়িতে যা খুশি তাই করতে পারার স্বাধীনতা পেয়ে গেছিলো।

আমার মা নিজে র হাতে তাদের কে সেই লাইসেন্স দিয়েছিল। সন্ধ্যে সাতটা বাজতেই সেদিন তাদের আসর শুরু হলো। আসরে মা যথারীতি মধ্য মনি হয়ে বিরাজ করছিল। আমি বাড়িতে থাকায় ওরা সেদিন একটু গলা নামিয়ে আলোচনা করছিলো। তবুও আমি কান খাড়া করে ওদের প্রায় সব কথা বার্তা পাশের ঘর থেকে পরিষ্কার শুনতে পারছিলাম। ঘন ঘন মদের পেয়ালায় পানীয় ঢালার শব্দ পারছিলাম। মা সেদিন আংকেল দের জন্য স্পেশাল কাবাব বানিয়ে রেখেছিল। সেই কাবাব সহযোগে দামী বিদেশি ব্র্যান্ডের মদ এ আসর টা জমেছিল ভালো। সেদিন সন্ধ্যে বেলা এক ঝলকের জন্য আমি মা কে দেখেছিলাম।

মা সেদিন আঙ্কেল দের সন্তুষ্ট করে দারুন মাঞ্জা দিয়ে সেজেছিল। হট মিনি স্লিভ লেস ব্লাউজ এর সাথে পাতলা কালো রঙের ফেব্রিক কাপড়ের ট্রান্সপারেন্ট শাড়ি তে মা কে সেদিন অ্যাকট্রেস দের মতন সুন্দরী আর সেক্সী লাগছিল। ব্লাউজ টা বেশ ছোট টাইট ফিটিংস ছিল, তার নীচে কোনো ব্রা না পড়ায় তার ৩৮ সি সাইজের ব্রেস্ট যেনো ব্লাউজের ভেতর থেকে ঠেলে বাইরে বেরিয়ে আসতে চাইছিল। তার উপর ঠোঁটে লাল লিপস্টিক আর কাজল পড়ায় তাকে অপূর্ব মোহময়ী দেখাচ্ছিল। সব মিলিয়ে ঐ রূপে আংকেল দের মতন মানুষ রা মা কে হাতের কাছে পেয়ে পুরো পাগল হয়ে যাবে এ কথা আমি হারে হারে বুঝেছিলাম। আর হয়েছিল তাই। সেই দিন সন্ধ্যের পর কোনো কিছু আর মা র নিয়ন্ত্রণে রইলো না। সে আংকেল দের হাতের পুতুল এ পরিণত হলো।

মদ খেতে খেতে ওদের কথা বার্তা চলছিল। মা ওদের সঙ্গে বেশ খুল মিল গেছিলো। শাড়ির আঁচল মাঝে মধ্যেই কাধের উপর থেকে স্লিপ করে নিচে লুটিয়ে যাচ্ছিল। আঙ্কল রা সেই দৃশ্য খুব ভালো ভাবে উপভোগ করছিল। আংকেল রা মা কে তাদের সঙ্গে পার্টনারশিপ ব্যাবসায় যোগ দেওয়ার ব্যাপারে সাধাসাধি করছিল। আর মাও সমানে ওদের প্রস্তাবে না না করছিল। শেষে মিস্টার নায়েক মা কে সরাসরি জিজ্ঞেস করে বসলো, আরে মিসেস রায় আপনি আমাদের সাথে ব্যাবসায় আসতে এত ভয় পাচ্ছেন কেন? আমরা কি বাঘ ভালুক আছি, যে আপনাকে খেয়ে ফেলবো।”

শর্মা আংকেল ও মিস্টার নায়েক কে সমর্থন করে মা কে বললো, ” সেহি বাত, আরে নন্দিনী তোমাকে তো ওফিস যেতে হবে না। ফাইল যা sign করবার থাকবে সেটা আমি তোমার বাড়িতেই পাঠিয়ে দেবো। আপনি শুধু আমাদের টাকা নিজের জিম্মায় রাখবে, আর তার হিসাব রাখবে। মিস্টার চৌধুরী ও বললো, শর্মা জি ঠিক বলেছে মিসেস রায় আসল বিজনেস ক্লাবে আর গলফ কোর্টে হয় সেসব আমরা সামলে নেবো। আপনি বাড়িতে থেকেই আমাদের কো অপারেট করবেন। কোনো বাইরের ক্লিয়েনট আসলে একটু শুধু আমাদের সঙ্গ দিতে ক্লাবে যাবেন তাহলেই চলবে।” মা ওদের জবাবে বলবো, ” সব মানলাম কিন্তু আমি আর বিজনেস কীভাবে, আমার তো আপনাদের মতন এত টাকাও নেই যে ইনভেস্ট করবো।”

শর্মা আংকেল একটা সিগারেট ধরিয়ে ধোয়া টেনে বললো, ” দেখো নন্দিনী, টাকা দিয়ে সব টা হয় না। তোমার কাছে যা আছে সেটা অন্য কারোর কাছে নেই। আমরা তোমাকে বিশ্বাস করতে পারি। তুমি শুধু তোমার মূল্যবান টাইম ইনভেস্ট করো তাহলেই চলবে, আমরা তোমায় বিশ্বাস করে যা রাখতে দেবো সেটা তুমি সামলে রাখবে, আবার যখন প্রয়োজন হবে সেটা বার করে দেবে। আমরা এভাবে মাঝে মধ্যে মদের আসর বসাবো, তুমিও আমাদের সঙ্গে বসে কোম্পানি দেবে, দুটো কথা বলবে, এটাই এনাউফ।” মা: আমি আমি কি করে….মিস্টার নায়েক বলে উঠলো,” কম অন মিসেস রায়, রাজি হয়ে যান প্লিজ। আমি সঙ্গে করে কন্ট্রাক্ট পেপার এনেছি, তাতে। একটা সই করে দিলেই আপনি আমাদের পার্টনার। আমাদের পার্টনার হলে খুব অল্প সময়ে আপনি মালামাল হয়ে যাবেন।”

মা: আমি একবার আমার বর কে… শর্মা আংকেল: নন্দিনী তুমি নিচ্ছিন্তে সই করো, রাজিব কে আমি সামলে নেবো। তার দিক থেকে কোনো বাধা আসবে না।” মা ওদের প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে থাকতে পারলো না। ভালো করে কিছু না দেখে, কিসের ব্যাবসা কি বিবরণ কিছুই বিষদে না জেনে মিস্টার নায়েক এর তৈরি করে আনা কন্ট্রাক্ট পেপারে সাইন করে দিলো। মা সাইন করার পর ওদের তিনজনের মুখ থেকে জোরে সম্মিলিত উল্লাস ধ্বনি বের হলো। প্রথম দিন পার্টনার হিসাবে সাইন করার পরে মা কে ওরা ৬৫ লাখ টাকা র একটা ব্যাগ নিজের ওয়ার্দ্রবের লকারে সামলে রাখবার জন্য দিলো। ওরা এটাও জানিয়েছিল, এক সপ্তাহ পর মিস্টার নায়েক এসে ঐ টাকা টা তার কাছ থেকে নিয়ে যাবে।

আর কাজ টা হয়ে গেলে ঐ টাকার একটা ছোটো অংশ মার হবে। আঙ্কল দের মদ এর আসর শুরু হবার মিনিট ৪০ এর মধ্যেই মা তার তিন পেগের কোটা পূর্ণ করে ফেলে। তারপরেও মায়ের পাশে বসে মিস্টার নায়েক আর মিস্টার চৌধুরী রা তাকে আরো ড্রিঙ্কস নেওয়ার জন্য অনুরোধ করে। চতুর্থ পেগ নেওয়ার সময়, মার কাধের উপর থেকে শাড়ির আঁচল টা স্লিপ করে কোলের উপর পরে যায়। মা সেটা ঠিক করতে যাবে এমন সময় পাস থেকে মিস্টার চৌধুরী মায়ের খালি হয়ে আসা গ্লাসে আরো মদ ঢেলে দেয়। মা সেটা দেখে না না করে ওঠে, আংকেল রা তাকে আরো মদ পান করার ব্যাপারে মানাতে থাকে। মাঝ খান থেকে মা মদের চক্করে পড়ে নিজের শাড়ি ঠিক করতে ভুলে যায়। মিস্টার নায়েক চুপিসারে পাস থেকে হাত দিয়ে মার বুকের আর পেটের উপর থেকে শাড়ি টা সম্পূর্ণ ভাবে সরিয়ে ফেলে।

অন্যদিকে মিস্টার চৌধুরী আর শর্মা আংকেল মা কে মদ নিয়ে ব্যাস্ত রাখার ফলে মা মিস্টার নায়েক কে আটকাতে ভুলেই যায়। এই ভাবে তিন পরপুরুষের সামনে মায়ের বুক পেট সব উন্মুক্ত হয়ে পরে। মায়ের আকর্ষনীয় ফিগার আর খোলা উন্মুক্ত বুক পেট দেখে আংকেল রা দল বেঁধে দুষ্টুমি শুরু করে। মা চেষ্টা করেও তিনজন সমত্ত পুরুষ কে সামলাতে পারে না। একজন কে আটকাতে গেলে অন্য জন এসে দুষ্টুমি করে ব্যতিব্যস্ত রাখছিল। ওরা মার সঙ্গে ডবল মিনিং ওলা কথা চালাচ্ছিল। যার বেশির ভাগই ছিল মায়ের সুন্দর শরীর কে নিয়ে। ঐ সব কথা বার্তা যত এগোচ্ছিল মার কান গরম আর শরীর দুই গরম হচ্ছিলো।

এই দিকে বাড়ির গ্র্যান্ড ফাদার ক্লক টায় আওয়াজ করে রাত ১১ টা বাজলো তখনও ওরা আসর থামায় না। ফিরে যাওয়ার নাম গন্ধ পর্যন্ত করে না, তাই দেখে আমি তাজ্জব বনে যাই। ইতিমধ্যে মা সন্ধ্যে থেকে মোট ৬ পেগ ড্রিঙ্কস নেওয়ার ফলে দুইবার ওয়্যাশ রুম থেকে ঘুরে এসেছে, তারপরেও আংকেল রা কেউ নিজেদের বাড়ি ফেরবার নাম করলো না। তাই দেখে মার মতন সাহসী নারী ও কিছুটা ভয় পেয়ে গেল। চুপ চাপ হয়ে গেছিল। এদিকে মদের বোতল সব খালি হয়ে গেছিলো। আঙ্কল রা তারপরেও থামতে চাইছিল না।

বাধ্য হয়ে মা ড্রইং রুমের বার ক্যাবিনেট থেকে আর দুটো ফ্রেশ মিডিয়াম হুইস্কির বোতল বের করে এনে ওদের সামনে রাখতে হয়। এই ড্রিংক টা আনার সময় মা সুস্থ্য অবস্থায় ছিল না। পা তখন থেকেই রীতিমত টলছিলো। ড্রিংক এনে বাড়ির ভেতরের ঘরে যাওয়ার সময় মা দরজা টা বন্ধ করতে ভুলে গেছিল। আমি জল নিতে ঐ সময় ড্রইং রুম পেরিয়ে কিচেনের দিকে এসেছিলাম। জল নিয়ে নিজের ঘরে ফেরবার সময় মা দের ভেতরের বড়ো ঘরে আলো জ্বলছে আর দরজা খোলা দেখে ভীষন কৌতূহল হলো। আমি আর থাকতে না পেরে, আমাদের বাড়ির ঐ ছোটো হল ঘর তার দিকে এগিয়ে গেলাম যেখানে বসে ওরা সাধারণত আসর জমায়।

ঐ ঘরের ঢুকেই বাঁদিকে একটা থাম ছিল, পর্দাও ছিল। আমি চুপি সাড়ে ঘরে ঢুকে থাম আর পর্দার আড়ালে দাড়ালাম। ওরা সবাই থাম থেকে আট হাত দুরে সোফা র উপর আমার দিকে পিছন করে বসে থাকায় আমি ঘরে এসেছি সেটা দেখতে পারলো না। নেশা করে থাকায় বোঝার অবস্থায় কেউ ই ছিল না। আমি দেখলাম ঘড়িতে রাত এগারোটা বেজে দশ বেজে গিয়েছে তো কি হয়েছে আঙ্কল দের মদের আসর তখনও পুরো দমে চলছে। মার সঙ্গে তিন জন অতিথি ই উপস্থিত আছে। ওদের দেখে কারোরই কোনো ফিরে যাওয়ার তাড়া আছে বলে মনে হল না। শর্মা আংকেল তো শার্ট খুলে ফেলেছে। মিস্টার নায়েক মিস্টার চৌধুরীর এর গায়ে শার্ট আছে কিন্তু তার সব বাটন খোলা। আঙ্কল মার জন্য ৭ নম্বর পেগ বানিয়ে রেডী করছে।

এই বার ড্রিংকে কোনো জল সোডা কিছুই মেশালো না। র ড্রিংক ধোওয়া ওঠা ঠান্ডা দুই টুকরো বরফ এর সঙ্গে মার হাতে সার্ভ করলো। মা সজোরে মাথা নাড়তে লাগলো। বোঝাতে গেলো, ও আর ড্রিংক নিতে চাইছে না। আর মদ খেলে মা সামলাতে পারবে না। আঙ্কল রা মার বারণ নিষেধ কিছু শুনলো না। মিস্টার নায়েক একদিক থেকে মিস্টার চৌধুরী এক দিক থেকে মা কে চেপে ধরলো আর শর্মা আংকেল কিঞ্চিৎ জোর করেই নিজের হাতে করে মার মুখের সামনে ঐ গ্লাস ভর্তি হুইস্কি এনে খাইয়ে ছাড়লো। ঐ র অ্যালকোহল প্রথম ঢোক মার মুখের ভেতর প্রবেশ করতেই মা বেশ শব্দ করে কেশে উঠলো। মা কাসছিল তবুও আংকেল পুরো গ্লাস টা খালি না করে ছাড়লো না। ঐ ড্রিঙ্ক টা শেষ করিয়ে শর্মা আংকেল আবার একটা পেগ রেডী করতে লাগলো।

এদিকে সন্ধ্যে বেলা থেকে হার্ড ড্রিংক খেতে খেতে মার শরীর টা ভীষন রকম গরম হয়ে উঠেছিল। যদিও ঐ রুমে দুটো এসি চলছিল। তা সত্ত্বেও মা রীতিমতো ঘামতে শুরু করেছিল। তার পরনের শাড়ি টা অর্ধেক সোফার উপর বাকিটা মেঝেতে লুটাচ্ছিল। মায়ের কাধ হাত পিঠ আমি পরিষ্কার দেখতে পারছিলাম। বিন্দু বিন্দু ঘাম মার সুন্দর মসৃণ ফর্সা পিঠ বেয়ে গড়িয়ে কমরের কাছে ঝড়ে পরছিল। দেখে মনে হচ্ছিল কেউ মার পিঠে কাধে ভালো রকম জল ছিটিয়ে ভিজিয়ে দিয়েছে। সামনের দিকে ও একই অবস্থা ছিল। মার ব্লাউজ টা ঘামে ভিজে গিয়েছিলো। ৮ নম্বর পেগ রেডি করে ওটা মায়ের হাতে ধরিয়ে দিয়ে শর্মা আংকেল মা কে একটা সাহসী প্রস্তাব দিলো। আঙ্কল বলেছিল, ” Uff, খুব গরম লাগছে, কী নন্দিনী, তুমি তো ঘামছ রীতিমত। তো এক টা কাজ করছো না কেনো, ব্লাউজ টা খুলে ফেলো। ইউ উইল ফিল বেটার।” মা চুপ করে রইলো, কোনো জবাব দিল না।

এক মিনিট পর শর্মা আংকেল কে সমর্থন করে মা কে বললো,
” সেহী বাত, কাম অন মিসেস রায়, সব কিছু খুলে ফেলুন তো। গরমে এসি ঠিক মত কাজ করছে না। এই গরমে এত কিছু পরে থেকে নিশ্বাস নিতে পারছেন কি করে, খুলে ফেলুন। এই দেখুন আমরাও খুলছি।” এই কথা বলা মাত্র মিস্টার নায়েক ও নিজের শার্ট খুলে ফেললো। কয়েক সেকেন্ড বাদে মিস্টার চৌধূরী ও নিজের শার্ট খুলে ফেললো। এরপর মা কেও টপলেস হবার জন্য জোরাজুরি শুরু করলো। মিস্টার নায়েক তো জেদ ধরে বসলেন, যে মা ব্লাউজ টা না খুললে উনি রাতে নিজের বাড়ি ফিরবেন না। আট নম্বর পেগ টা শেষ করে মা বাধ্য হয়ে আঙ্কল দের আবদার রাখতে সত্যি সত্যি ব্লাউজ টা খুলে শরীর থেকে আলাদা করা শুরু করলো। মা শুধু পিঠের পিছনের ব্লাউজের দড়িটা টান মেরে খুললেন বাকি কাজ প্রবল উৎসাহে আংকেল রাই করে দিল।

আংকেল দের তিন জোড়া হাত এগিয়ে এসে এক সেকেন্ডের ভিতর মার শরীর থেকে ব্লাউজ টা টেনে আলাদা করে দিলো। মা ব্লাউজ খুলে টপলেস হতেই আংকেল রা উল্লাসে চিৎকার করে উঠলো। মা লজ্জায় নিজের মুখে দুই হাত চাপা দিল। শর্মা আংকেল হাসতে হাসতে মা কে নিজের কাছে টেনে এনে মিস্টার নায়েক ও মিস্টার চৌধুরীর সামনেই লিপ কিস করতে লাগলেন। পাঁচ মিনিট ধরে আংকেল কে কিস করার পর মা ক্লান্ত হয়ে সোফায় এলিয়ে পড়লো। দুই মিনিট ঐ ভাবে থাকার পর মা বললো,,” আমি আর বসে থাকতে পারছি না। প্লিজ এক্সকিউজ মে। আমি আমার রুমে যাবো। ” এই বলে উঠে পড়তে গেলো, কিন্তু প্রথম বারের চেষ্টায় উঠে দাড়াতে পারলো না। প্রচুর ড্রিংক করাতে মার মাথা টা ঘুরছিল। ২ য় বার কোন রকমে উঠে দাড়াতে পারলো। মা উঠে দাঁড়াতেই মিস্টার নায়েক এগিয়ে এসে একটা কান্ড করলো। সে টান মেরে মার শরীর থেকে শাড়ী টা আলাদা করে দিল। সায়া আর পান্টি পরে টলতে টলতে মা হল ঘরের সামনের দিক থেকে নিজের বেড রুমের দিকে পা বাড়ালো ।

শর্মা আংকেল ইশারা করে মিস্টার নায়েক কে মার পিছনে মার বেডরুমে যেতে নির্দেশ করলেন । আগের থেকে প্ল্যান সব করাই ছিল।মিস্টার নায়েক এর মতন বিজনেস ম্যানের শর্মা আংকেলের ইশারা বুঝতে কোনো অসুবিধা হলো না। সে একটা শয়তানি মার্কা মিচকে হাসি হেসে, শর্মা আংকেল কে ধন্যবাদ জানিয়ে, এক ঢোক দিয়ে নিজের গ্লাসের সব টুকু মদ এক নিশ্বাসে শেষ করে মার পিছনে ধাওয়া করলে। এই ব্যাপার টা দেখে জাস্ট শিউরে উঠলাম। ঘটনা টা দেখে বুঝলাম মার নিজের বাড়িতেই সুরক্ষা বলে কিছু আর অবশেষ রইলো না। মিনিট খানেক পর সজোরে মার বেডরুমের দরজা বন্ধ হওয়ার আওয়াজ পেলাম। ঐ দরজা বন্ধের শর্মা আংকেল আর মিস্টার চৌধুরী একে অপরের দিকে তাকিয়ে হাসলেন। অনেক্ষন দাঁড়িয়ে থাকার পর আমি ঘরেই একটা অন্ধকার কোন দেখে বসলাম, আংকেল রা ঘরের অর্ধেক আলো নিভিয়ে রেখেছিল। কাজেই লুকিয়ে থাকতে অসুবিধা হলো না।

মার জন্য উদ্বেগ মন থেকে যাচ্ছিল না। তাই চুপ চাপ নিজের ঘরে ফেরত যেতে পারলাম না। পনেরো মিনিট পর দরজা খোলার শব্দ হলো। আরো ৩০ সেকেন্ড বাদে মিস্টার নায়েক ঐ হল ঘরে ফিরলেন। আমি দেখলাম, তার চোখে মুখে অদ্ভুত তৃপ্তির ছাপ নিয়ে। সে ধপ করে সোফায় বসবার সময় দেখলাম তার প্যান্টের জিপ আর বেল্ট সব খোলা আছে। মিস্টার নায়েক এসে বসতেই শর্মা আংকেল মিস্টার চৌধুরী কে মার বেডরুমে পাঠালো। মিস্টার চৌধূরী উঠে যেতেই মিস্টার নায়েক শর্মা আংকেল কে বললো, ক্যা মাল হে, আজ ফুল মজা অা গয়া…”” শর্মা আংকেল হাসতে হাসতে মিস্টার নায়েক এর সঙ্গে করমর্দন করলেন। উনি বললেন, আজ তুমারে জলদি নিকাল গায়া। শুনে মিস্টার নায়েক ও হাসতে লাগলেন। কুড়ি মিনিট পর মিস্টার চৌধুরী ফিরে এলেন। দেখলাম উনিও বেশ সন্তুষ্ট এবং পরিশ্রান্ত। মিস্টার নায়েক মিস্টার চৌধুরীর পর অর্ধেক ভর্তি হুইস্কি জার টা নিয়ে শর্মা আঙ্কল সোফা ছেড়ে উঠে পড়লো। মিস্টার চৌধুরী বললো আরে শর্মা জি, এক্ষুনি যাবেন, পর পর দুজনের সঙ্গে করে মিসেস রয় মাস্ট বি টায়ার্ড। ভ্যাজিনা হোলে অল্প সময়ে বেশ ভালো চাপ পড়েছে, নায়েক করে একেবারে ফুলিয়ে দিয়েছে । ভেতরে কোথাও কোথাও আবার ছড়েও গেছে। শেষের দিকে খুব পাচ্ছিল বেচারী।”

শর্মা আঙ্কল মিস্টার চৌধুরীর কথা কানেই তুললেন না। উনি বললেন, “ডোন্ট গেট ফিয়ার। নন্দিনী সামনে নিতে না পারলে পিছনের রাস্তা দিয়ে আমার টা ঠিক নিয়ে নেবে। এই টুকু ভরসা ওর উপর আছে।” ” তোমরা এসব নিয়ে ভেবো না। ড্রিংক নাও, একটু জিরিয়ে নিয়ে এনার্জি রিকোভার করো। আমি খেলে আসি, তারপর আরো এক রাউন্ড করে তোমরা চান্স পাবে। মিস্টার নায়েক ইস বার থোড়া সামাল কে করনা।” মিস্টার শর্মা একহাতে হুইস্কি র জার নিয়ে মার বেডরুমে র দিকে চলে গেলেন। উনি চলে যেতেই মিস্টার নায়েক বললো, মিস্টার শর্মা কে দেখে জেলাস ফিল হচ্ছে। কি সুন্দর ভাবে উনি আসলেন দেখলেন আর মিসেস রায় কে নিজের জন্য তুলে নিলেন। আমরা সাইড এই রয়ে গেলাম।” মিস্টার চৌধুরী বললো, ” সে ঠিক আছে, শর্মা জি মিসেস রায় কে নিজের ভোগ করবার জন্য তৈরী করেছেন। কিন্তু উনি এটা করেছেন বলেই আজ আমরা প্রাসাদ পাচ্ছি।”মিস্টার নায়েক রিপ্লাই দিলো, ” হ্যাঁ প্রাসাদ হয়তো পাচ্ছি। কিন্তু সেটা শর্মা জী নিজের স্বার্থ আছে বলে দিচ্ছে। না হলে ওকে তো আমি বিশ বছর ধরে চিনি।

অনিকেত শর্মা স্বার্থ ছাড়া কোনো কাজ করে না। আমাদের ও সতর্ক থাকতে হবে। শুনেছি মিসেস রায় কে পাবার জন্য মিস্টার দাসগুপ্তা আর মিস্টার রাজবংশ রাও সমান ইন্টারেস্ট দেখিয়েছে।” মিস্টার চৌধুরী নায়েক এর কথার রেস টেনে বললো, ” হ্যা, নায়েক ঠিক বলেছো, আর দাশগুপ্তা তো অনেকটা এগিয়ে গেছিলেন। মিসেস রায় কে তার সব পার্টি তে ইনভাইট করছিলেন। মিসেস রয় কে ডেকে ডেকে দামী সব গিফট ও দিচ্ছিলেন। কিন্তু শর্মা জী নিজের থেকে পাওয়ার ফুল কাউকে মিসেস রায় এর সঙ্গে বেশি মিশতে দিতে রাজি না। সেই জন্য আমাদের কপাল খুলেছে।” এই কথা শেষ হতে না হতেই মার রুম থেকে মার গলায় মৃদু আর্তনাদ ভেসে আসতে শুরু করলো। আহহহহ আহহহহ, আস্তে….. আহহহহ আস্তে করো লাগছে…..আহহহহহহহ আহহহহ উই মাআআআআ! আস্তে ….আহহহহ আহহহ! আওয়াজ শুনে নায়েক বললেন, দেখো শর্মা জী মিসেস রায় এর ক্লাস লেনা শুরু করে দিয়েছেন।” এর পর আমি আর ওখানে লুকিয়ে বসে থাকতে পারি নি। দৌড়ে ঘরে ফেরত এসে দরজা লাগিয়ে শুয়ে পড়েছি।

সেই রাতে আঙ্কল রা ঠিক কটা অবধি বাড়িতে কাটিয়েছে আমি তা জানতে পারি নি। কিন্তু যতক্ষন কাটিয়েছে মা কে পালা করে বিছানায় ব্যাস্ত রেখেছিল। ওরা তিনজন মিলে পালা করে মায়ের সঙ্গে এক বিছানায় শুয়ে তার এমন হাল করে ছেড়েছিল যে পরের দিন আমার মা গোটা দিন বিছানা ছেড়ে ব্যাথার কারণে উঠতে পারে নি। জ্যান্ত লাশের মতন সারাটা দিন নগ্ন অবস্থায় একটা চাদরে কোনরকমে নিজের ধর্ষণ ক্লিষ্ট শরীর টা ঢেকে বিছানা তেই পরে রইলো, এমন কি মা খাবার খেতে ও ঘরের বাইরে সেদিন বেরোলো না। ঐ দিনের পর ও মার যৌন জীবন এক জায়গায় থেমে থাকে নি। ব্যাবসার ছুতোয় আংকেল রা যেনো যখন খুশি তখন আমাদের বাড়িতে এসে মা কে বিরক্ত করবার অধিকার, তার শরীর নিয়ে খেলবার অধিকার জিতে নিয়েছিল।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top