মার পরপুরুষের সঙ্গলাভ – অষ্টম পর্ব।

This story is part of a series:

আর ফিরে এসেই লাগেজ নিয়ে ডাইরেক্ট মার ফ্ল্যাটে এসে হাজির হয়েছিল। আগের রাত জুড়ে দুজনের সঙ্গে থ্রি সাম করে মায়ের আংকেল কে বিছানায় খুশি করবার মতন শরীরের হালত ছিল না। আঙ্কল ও কিন্তু ডেসপারেট ছিল মার সঙ্গে সেই রাত এ শোবার বিষয়ে, এসে অনেক্ষন ধরে সুগন্ধি বডি ওয়্যাস গেল মেখে স্নান করেছিল।

এখানে মার শরীর খারাপ এর অজুহাত ধোপে টিকলো না। মা তবুও আংকেল কে একটা রাত না করার অনুরোধ করেছিল, কিন্তু আংকেল ও বেশ কয়েক দিন মার শরীর না পেয়ে ভেতরে ভেতরে ফুটছিল। মার অনুরোধ নাকজ করে মা কে তৈরি হয়ে ঠিক সময়ে বেডরুমে আসবার নির্দেশ দিল। মা বাধ্য হয়ে নিজের ব্যাগ থেকে কড়া ডোজ এর নেশার ওষুধ বার করলো।

আঙ্কল ওটা মা কে নিতে বারণ করলেও কবিতা আন্টির কাছ থেকে মা নিজের প্রয়োজনেই ঐ বিশেষ ওষুধ তার নাম আর কোথায় পাওয়া যায়, সেটা জেনে নিয়েছিল। তারপর কেয়ামত কে দিয়ে ঐ বিশেষ ওষুধ টা জোগাড় ও করে রেখেছিল, এই ওষুধ সেবন করলে যেমন অনেক সময় ধরে লাগাতার যৌনতা জারি রাখা যায় তেমনি এই ওষুধ তার অনেক সাইড এফেক্ট ও আছে।

এই ওষুধে স্ট্রেরয়েড থাকায় শরীরের মাংস পেশী গুলোতে চর্বি জমে, হার্টের রোগ ও দেখা যায়, বুক পেট পাছা সব আস্তে আস্তে একটা ভরাট শেপ নেয়। বিশেষ করে ব্রেস্ট খুব অল্প সময়ে সাইজে বেড়ে যায়। আর ওষুধ নিয়মিত নিলে এটা নেওয়ার একটা নেশা ধরে যায়। ঘুম আর জড়তা বেড়ে যায়, সব কিছু জেনেও মা ডিনারের পর বাধ্য হয়ে ঐ বিষ টা এক গ্লাস জলের সাথে পান করে, একটা নতুন পাতলা স্লিভলেস নাইটি পরে আংকেল এর সঙ্গে বেডরুমে প্রবেশ করালো।

আমার চোখের সামনে মা আঙ্কল এর সঙ্গে বেডরুমে প্রবেশ করার মিনিট পাঁচেক এর মধ্যেই বন্ধ দরজার ওপাশ থেকে শর্মা আঙ্কল আর মার সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স এর শব্দ ভেসে আসতে আরম্ভ করে। পরের দিন সকালে মা কে ব্রেকফাস্ট টেবিলে দেখে এক কথায় শোকড হয়ে যাই।

মা আগের রাতে নাইটি টা ছেড়ে স্নান সেরে শর্মা আঙ্কল এর পছন্দের হালকা আকাশী রঙের কটন অফিস সুইট টা পড়ে বেড়িয়ে ব্রেকফাস্ট নিতে এসেছে। uncle আগের রাত এর শার্ট পান্ট তাই পড়া ছিল। ওদের গা থেকে এক বডি ওয়্যাস জেল এর সুগন্ধ বেরোচ্ছিল। আমি আন্দাজ করেছিলাম মা আর আংকেল সকালে সম্ভবত একসাথেই শাওয়ার নিয়েছিল। শাওয়ার নেওয়ার পরেও ওদের মধ্যে এক রাউন্ড আদর হয়ে গেছে সেটাও বুঝতে পারছিলাম।

কারণ শর্মা আংকেল এর গলার কাছে মার লিপ মার্ক পরিষ্কার দেখা যাচ্ছিল যেটা আংকেল ক্লিন করতে ভুলে গেছিল। মার অফিস শুট এর তলায় পড়া সাদা শার্ট ছিল, শার্টের উপরের দুটো বোতাম খোলা থাকায় মায়ের স্তন্ বিভাজিকা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিলো। সব থেকে আশ্চর্য লাগলো শার্টের তলায় মা কোনো ইনার পরে নি। আমি মাকে ঐ অবস্থায় দেখে লজ্জা পেয়ে গেছিলাম। তা সত্বেও আমি আংকেল এর সামনেই গলা টা নামিয়ে মায়ের কানের কাছে মুখ এনে বলেছিলাম, মা তুমি এটা কি করছো? ঘরে যাও, আয়নার সামনে প্লিজ দাড়িয়ে দেখো। আজ শার্ট এর তলায় কিছু পড়তে ভুলে গেছো। এভাবে বাইরে যাবে।”

মা কিছু বলতে যাবে এমন সময় শর্মা আঙ্কল বলে উঠলো, তাতে কি হয়েছে সুরো, তোমার মা কিছু পড়ুক না পড়ুক বাড়িতে কে দেখবে….. রাতে শোওয়ার সময় তোমার মায়ের কিছুই পড়া ছিল না। হে হে হে… হু কেয়ার্স?? কিছু না পড়েই আরো বিউটিফুল লাগছিলো।”

মা আংকেল এর কথা শুনে মুখ আমার দিক থেকে সরিয়ে একটু অস্বস্তি ভাব এনে বললো। ” শর্মা জির খালি আজে বাজে কথা, একচুয়ালি কি হয়েছে বল তো সুরো, আমার লাস্ট ক দিন ধরেই সব ব্রা টাইট হচ্ছে। যে দুটো বড়ো সাইজ এডজাস্ট করে পড়ছিলাম সেটাও গত দুদিনে ছিড়ে গেছে। তবে আজ তোর শর্মা আংকেল আমাকে নিয়ে শপিং যাবে বলেছে। সেখানেই বেশি করে স্টক কিনে নেবো।”

শর্মা আংকেল মার কথা কে সাপোর্ট করে বললো,
ইয়েস ডারলিং, ইউ আর রাইট, আজ অফিস থেকে ফেরার পথে শপিং মলে যাবো। তোমার ফেভারিট জায়গা। যা পছন্দ তাই কিনে নেবে, বিল আমি মেটাবো।”
মা: না না শর্মা জী সব কিছু তে তোমার উপর এই বার বার ডিপেন্ড করতে আমার ভালো লাগছে না। তুমি কত করবে…

শর্মা আঙ্কল: এখানে আছো, আমি সেভাবে কিছুই করতে পারছি না। আমার ওখানে উঠলে দেখতে তোমাকে কি ভাবে রানী বানিয়ে রাখতাম। বাই দ্য ওয়ে আজ সন্ধ্যে বেলা মিস্টার সুখেয়ানির পার্টি আছে। মনে আছে, সেরে ওখানে যাবে তো? উনি তোমাকে বার বার যেতে বলেছেন।

মা: ওহ শিট, আজকেই তো ফ্রাইডে, ভুলেই গেছিলাম। মিস্টার সুখওয়ানির পার্টি, তার মানে বিশাল ব্যাপার। উফফ কদিন বাদে হলে বেশ হতো। আজ আমার শরীর টা ঠিক ভালো নেই। মিটিং টা না থাকলে অফিস তাও যেতাম না।

শর্মা আংকেল: কাম অন নন্দিনী, মিস্টার সুখওয়ানি আমাদের এতদিন কার ক্লায়েন্ট, ওনার পার্টি অ্যাটেন্ড করতেই হবে। অফিসের মিটিং এর ব্যাপার জাস্ট ১ ঘণ্টায় মিটে যাবে। তারপর তুমি ফ্রি। যা হবার আমার দুদিন আগেই ফাইনাল হয়ে আছে। তুমি জাস্ট এস বোর্ড মেম্বার মিটিং এর মিনিটস বুকে সাইন করে দিয়ে চুপ চাপ বসে থেকো। বাকিটা আমি সামলে নেবো। দরকার পড়লে, মিটিং এর পর কেবিনে তুমি একটু রেস্ট নিয়ে নেবে। তারপর শপিং সেরে, একটু স্যালন এ গিয়ে ফিটফাট হয়ে নিয়ে, আটটায় পার্টি। আর মিস্টার সুখওয়ানির পার্টি তে গেলেই তোমার শরীর ভালো করার বন্দোবস্ত থাকবেই, ইউ নো ইট ভেরি ওয়েল।”

মা: ওকে শর্মা জী, সুরো শুনলি তো, আজকে আমার জন্য অপেক্ষা করিস না। আমার ফিরতে লেট হবে। বেরোনোর আগে, আমি কেয়ামত কে বলে যাবো। তাড়াতাড়ি ডিনার সেরে শুয়ে পরবি। রাত করবি না। আমি আর আংকেল বাইরে খেয়ে ফিরবো।

আমি এইসব কথা শোনার পর আর ওদের সঙ্গে বেশি ক্ষণ বসে ব্রেকফাস্ট নিতে পারি নি। এক্সকিউজ মী বলে নিজের রুমে চলে এসেছিলাম। মাঝে মাঝে মার জীবনে হাই ক্লাস বন্ধু আর পার্টনারদের প্রভাব এমন বেড়ে যেতো মা তাল সামলাতে না পেরে নিজের সহ্য শক্তির লিমিট তাও ভুলে যেতো। মদ্য পান করে টলতে টলতে বাড়ি ফিরে কখনো শর্মা আংকেল আবার কখনো কেয়ামত কে নিজের রুমের বিছানায় সর্বস্ব লু টিয়ে দিচ্ছিলো।

মা বদ সঙ্গে পরে অনেক কিছু করতে আরম্ভ করেছিল যেগুলোর সবার সামনে করা তো দূর অস্ত সবার সামনে বলাও যায় না। এটা সত্যি নিয়মিত অফিস , পার্টি , ক্লাবে ঘোরা ফেরার জন্য মা কে নিজের শরীরের সৌন্দর্য র দিকে নজর রাখতে হয়েছিল। নিয়মিত বিউটি পার্লার, সেলোন, জিম এ গিয়ে পরিচর্যা করার ফলস্বরূপ তার শরীরী আবেদন দিন দিন বাড়ছিল। সময়ের সাথে সাথে মা অনেক সমস্যা অবাঞ্ছিত মুহূর্ত স্মার্টলি সামলে নিতে শিখে গেছিলো। কেয়ামতের সাথে তার সেলফি বাইরে চলে যাওয়ার পর থেকেই মা তার ফোনের পাস ওয়ার্ড নিয়মিত পরিবর্তন করতো। তার ফলে ফোন ঘেঁটে মা কখন কি করছে সেটা আর বোঝার উপায় থাকলো না।

আর এদিকে মা বাবার মধ্যে ডিভোর্স তাও সময় মত হয়ে গেছিলো। বাবা নিজেকে এতটাই পাল্টে ফেলেছিল, একটা পার্টি তে মা কে লুকিয়ে অঞ্জলী আন্টির সঙ্গে এনগেজমেন্ট রিং ও বদল করে নিয়েছিল। তাই অঞ্জলী আন্টির সঙ্গে সমঝোতা করে বাবার সঙ্গে তার বিবাহিত স্ত্রীর পরিচয়ে থাকতে চাইলেন না। আইন অনুযায়ী আমি সাবালক ছিলাম, তাই আমার কাছে অপশন ছিল মা আর বাবার মধ্যে একজন কে বেছে নেওয়ার । আমি লোকাল গার্জেন রূপে আমার মা কেই বেছে নিয়েছিলাম। মা ডিভোর্স এর alimony হিসেবে এককালীন বেশ কয়েক লাখ টাকা বাবার কাছ থেকে পেয়েছিলো। বাবা কে ছেড়ে মা নতুন ভাবে শুরু করার সিদ্ধান্ত নিল। আমি কষ্ট পেলেও, মার সিদ্বান্ত কে স্বাগত জানিয়ে ছিলাম।

তারপর দেখতে দেখতে মার বাবাকে ছেড়ে নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করবার পর প্রায় ৬ মাস কেটে গেল। আমি আমার কলেজ লাইফ নিয়ে নিজের মতন ব্যাস্ত হয়ে পরলাম। আর মা নিজে আংকেল দের সঙ্গে ব্যাবসায় অংশ গ্রহণ করে একাই আমাদের দুজনের মা আর ছেলের সংসার টানতে লাগলো। বাবা প্রথমে মা কে মাস কাবারি একটা টাকা অফার করেছিল। মা বাবার ঐ অফার রিজেক্ট করেছিল। বাবার থেকে কোনো রকম সাহায্য না নিয়েই আমাদের দুজনের বেশ ভালো ভাবেই চলে যাচ্ছিল শুধু তাই না বেশ ভালো ভাবেই চলছিল। মা কোনো কিছুর অভাব রাখছিল না।

এর জন্য না জানি আমার মা কে কতখানি ত্যাগ স্বীকার করতে হচ্ছিলো। ঘরে বাইরে মা কে নিজের হাই ক্লাস জীবনের ধারা বজায় রাখতে হারে একটা ব্যাস্ত যৌন জীবন এর অভ্যাস জারি রাখতে হয়েছিল। হাই ক্লাস পার্টি করা মানুষ দের সঙ্গে মিশে মায়ের লজ্জা শরমের আগল যেনো ভেঙে গেছিলো। তার ব্লাউজের আকার পরনের ড্রেস ও দিন দিন ছোটো হচ্ছিলো। এই ৬ মাসের ভেতরে আরো একটা নতুন ফ্ল্যাট মা কেনে। ওটা দামি আসবাবপত্র দিয়ে সাজিয়ে সপ্তাহের শেষের দুদিন মাঝে মধ্যে ওই নতুন ফ্ল্যাটে কাটিয়ে আসা শুরু করে।

সেখানে গেলে মা অবশ্য একা যেত না। তার পছন্দের সঙ্গী কেও রাত কাটানোর উদ্দেশে মা নেমন্তন্ন করে নিয়ে যেতো। আর আমাদের বাড়িতেও সন্ধ্যের পর আংকেল রা এসে আসর জমাতো। তাই আমি আমার কোনো বন্ধু কে কখনো বাড়িতে ইনভাইট করতাম না। প্রথম প্রথম শর্মা আঙ্কল মা র সঙ্গে এক ফ্ল্যাটেই এক রুমেই লিভ ইন করতো। একটা সময় পর আংকেল নিজের কারবারে একটু ব্যাস্ত হওয়া তে সেই লিভ ইন বেশি দিন কন্টিনিউ করা গেলো না। মা তারপরেও আংকেল এর থেকে রেহাই পেল না।

কারণ শর্মা আংকেল তার বিরাট ব্যাবসা নিয়ে ব্যাস্ত থাকলেও, তার ফাঁক এ ঠিক সময় বার করে, দুই থেকে তিন দিন এসে রাত আর সকাল টা মার সঙ্গে কাটিয়ে যেতো। আরো অনেক পুরুষ মা কে কাছে পাওয়ার জন্য পাগল ছিল। নায়েক আর চৌধুরী সাহেব রাও ধারাবাহিক সম্পর্ক রেখেছিল। তার সব কথা শুনে তাকে নিয়মিত খুশি রাখবার উপহার স্বরূপ মা আংকেল এর থেকে একটা ব্র্যান্ড নিউ ইমপোর্টেড ফোর হুইলার কার গিফ্ট পেয়েছিল। এত কিছুর মধ্যেও আমি মাঝে মাঝে টের পেতাম মার মনে যেনো সুখ নেই।

মা খুব দ্রুত ছুটে চলছিল। অল্প সময়ে প্রভাবশালী দের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করে যে পজিশন এ উঠে এসেছিল তার জন্য আস্তে আস্তে মার অনেক শত্রু হয়েছিল। এই শত্রু দের মধ্যে কেউ ছিল চেনা আবার কেউ সম্পূর্ণ অচেনা। একাধিক পুরুষের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের টানাপোড়েন আর হাই ক্লাস বিজনেস ওমেন লাইফের চাপ আস্তে আস্তে তার শরীরে আর মনে ছাপ ফেলতে শুরু করেছিল। সেই চাপ কাটাতে মা সিগারেট খাবার বদ অভ্যাস ধরলো।

বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বাবা মার ডিভোর্স টার এক বছর পূর্ণ হতে না হতেই শর্মা আঙ্কেল মা কে তার সঙ্গে এনগেজমেন্ট এর বিষয়ে রাজি করে ফেললেন। তারপর আংকেল এর ফার্ম হাউসে রাখা হোলি পার্টি তে সেই এনগেজমেন্ট এর কথা সবার সামনে ঘোষণাও করে দিল। মা বাবার বিচ্ছেদের জন্য শর্মা আংকেল প্রধান দায়ী। এছাড়া আমি জেনেছিলাম আংকেল এর জীবন এ মা কে ছাড়াও নারী আছে। তাই এই এনগেজমেন্ট এর খবরে আমার মার জন্য আমি আতঙ্কিত হয়ে পরলাম। যেভাবেই হোক এই এনগেজমেন্ট আটকাতে হবে আমি মনে মনে স্থির করলাম। আর মা র জীবন থেকে শর্মা আংকেল এর মতন ভদ্র মানুষের মুখোশ পরা এক শয়তান কে বিদায় করতে আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হলাম।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top