স্বামী স্ত্রীর সম্মতিতে যৌন জীবন দুর্বার গতিতে – পর্ব ১

(Swami Strir Sommotite Jouno Jibon - 1)

আমার গল্পের নায়ক শ্রীযুক্ত নিখিলেন্দু বোস একজন শিক্ষিত মানুষ, বয়স ৩৫, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির জেনেরাল ম্যানেজার, মার্কেটিং, ওনার স্ত্রী ছবি সেন (বোস), বয়স ৩১, নামী কলেজের ইরেজীর প্রফেসর। দুজনেই সকাল ৮ টা নাগাদ বেরিয়ে যান। বাড়িতে একজন মাসি আছেন। ওনাদের একটি মাত্র মেয়ে – ১৮ মাস বয়েস তার দেখা সোনা করার জন্ন্যে। মাসি সব কিছুই করে মেয়েকে দেখাশোনা করা তার সাথে রান্না-বান্না।

ওদের দিন বেশ ভালোই চলছিল হঠাৎ একদিন রাত্রে খাবার পরিবেশন করার সময় মাথা ঘুরে পরে যান। সাথে সাথে ওকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ডাক্তার দেখে ICCU তে ভর্তি করে নেন জানান সিভিয়ার হার্ট এট্যাক। নিখিল সারা রাত হাসপাতালেই থেকে যান। সকালে মাসির জ্ঞান ফিরতে ওর স্বামীর মোবাইল নম্বর নিয়ে তাকে ফোনে সব জানান। এবার বাড়ি ফিরে একটু রেস্ট নিয়ে ছবিকে বলেন – তুমি আজ কলেজে যেওনা বাবুসোনাকে সামলাও আমি অফিসে গিয়ে কয়েকটা জরুরি কাজ সেরে তাড়াতাড়ি ফায়ার আসব। সেইমত নিখিল তৈরী হয়ে বেরিয়ে গেল আর ছবির মাথায় নানা রকম চিন্তা ঘুরতে লাগল বিশেষ করে বাবুসোনাকে কে দেখে রাখবে।

ছবি ছেলেকে স্নান করিয়ে সেরেল্যাক খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে নিজেও স্নানটা সেরে নিলেন ফোন করে হোম ডেলিভারি আনিয়ে নিলেন। দুপুরের খাবার খেয়ে উঠে শুতে যাবেন তখনি কলিং বেল বেজে উঠলো। দরজা খুলে দেখলেন একজন লোক আর তার সাথে একটি পনের -ষোল বছরের মেয়ে। ওরা ছবিকে দেখেই জিজ্ঞেস করল সবিতা কেমন আছে। সবিতা কে মনে করতে চেষ্টা করলেন ছবি হঠাৎ মনে পরে গেল যে ওদের কাজের মাসির নাম তো সবিতা। ছবি ওদের দুজনকে ভেতরে ঢুকিয়ে বসতে দিলেন জিজ্ঞেস করলেন – তোমাদের কে খবর দিলো ?

শুনে মাসির স্বামী বলল সকালে দাদাবাবু ফোন করে জানিয়ছে। যাক বাবা নিখিল মাসির থেকে নম্বর জোগাড় করে জানিয়ে দিয়েছে যদি কিছু ভালোমন্দ ঘটে যায় তো মুশকিল। দুপুরের যে খাবার আনিয়ে ছিলেন সে খুব অল্পই খেয়েছে সেই খাবার দুজনকে বেড়ে দিলো খাবার টেবিলে। ওরাও কোনো কিছু না বলে খেয়ে নিলো। ওদের খাওয়া হতে বলল – তোমরা একটু বস কেননা তোমাদের দাদাবাবু এলে তোমাদের হাসপাতালে নিয়ে যাবেন, এখন একটু ভালো আছে মাসি তোমরা মাসির ঘরে গিয়ে একটু বিশ্রাম নাও। মেয়েটি বলে উঠলো নানা দিদিমনি আমরা এখানেই বসি মায়ের জন্ন্যে আমার ভীষণ চিন্তা হচ্ছে। ছবি ওদের সান্তনা দিতে চেষ্টা করছেন কিন্তু যাই হোক মেয়েটির মা হয়তো চিন্তা তো হবেই।

বিকেল চারটের সময় নিখিল ফিরল ওদের দেখে বলল যাক তোমরা এসে গেছ একটু বসো আমি পোশাক পাল্টে তোমাদের নিয়ে হাসপাতালে যাবো। কোনো চিন্তা করোনা তোমরা মাসি ভালো হয়ে যাবে আমরা আছিতো।

হাসপাতালে গিয়ে ওরা খুব অবাক হয়ে গেল হাসপাতাল যে এরকম হয় ওদের জানা ছিলোনা। নিখিলের কোম্পানির দশটা বেড এই হাসপাতালে আছে আর তাদেরই একটা বেডে মাসিকে রাখা হয়েছে। সবাইকে একসাথে যেতে দিলোনা প্রথমে আমি ঢুকলাম ডাক্তারের সাথে কথা বললাম এখন স্টেবেল কন্ডিশন তবে দশদিন থাকতে হবে হাসপাতালে। মাসি খুব ধীরে বলল দাদা আমার মেয়েটা এসেছে। বললাম হ্যা। আমি ওর মেয়েকে ডেকে নিয়ে এলাম মাসি মেয়েকে বলল তুই এবার থেকে দাদার বাড়ি থাকবি আমার মতো তোকেও সব কাজ বৌদি দেখিয়ে দেবে, তোর কোনো অসুবিধা হবেনা এখানে। এনারা খুব ভালো মানুষ তুই খুব ভালো থাকবি।

দিন দশেক পরে মাসিকে ছেড়ে দিলো ওর স্বামী ওকে বাড়ি নিয়ে গেল আর ওদের মেয়ে পারুল থেকে গেল নিখিল আর ছবির সংসারে।

এবার আমাদের স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কে কিছু বলে রাখি – যৌন জীবনের ব্যাপারে আমরা দুজনেই খুবই উদার। জীবনের একঘেয়েমি কাটাতে বিবাহবহির্ভুত সম্পর্কে আমরা দুজনেই জড়িত। কোনো প্রেম ভালোবাসা নয় শরীরী তাগিদে আমরা উভয়েই বিভিন্ন নারী -পুরুষের সাথে অবাধে মিশি আর তার জন্ন্যে আমাদের মনে কোনো খেদ নেই।

ছবি মাঝে মধ্যে ওর কোনো পুরুষ প্রফেসর কে বাড়িতে নিয়ে আসে সারা রাত যৌন সুখ উপভোগ করে তেমনি আমিও বাড়িতে দু-একবার অফিসের কোনো মেয়েকে নিয়ে সারা রাত সম্ভোগ করি। যদিও আমি বাড়িতে খুব কমই থাকতে পারি। আমার বেশির ভাগ যৌন সম্ভোগ হয়েছে বা হয় বিভিন্ন শহরের নামি দামি হোটেলে কোনো প্রফেশনাল মেয়ে নয় ক্লায়েন্টের বৌ বা কারো মেয়ে বা বোন এরাই আমার যৌন খিদে মেটায়। আমার ছবিকে ছাড়া প্রথম সম্ভোগ করি আমাদের কাজের মাসি সবিতার সাথে। জোর করে নয় মাসির নিজের ইচ্ছেতে।

তখন আমার স্ত্রী ছবি সন্তান সম্ভবা তাই বাপের বাড়ি গেছে বাড়িতে আমি একা। একদিন টুর থেকে ফিরে পোশাক পরিবর্তন করে বসে বসে টিভি দেখছি মাসি আমার জন্ন্যে চিকেন পকোড়া আর লাল চা নিয়ে এলো। একটু পরে ফায়ার এসে জিজ্ঞেস করল – দাদাবাবু রাতে কি ভ্যাট খাবেন না রুটি – আমি শুনে বললাম তোমার যা ইচ্ছে করো – বলতেই মাসি চলে গেল রান্না ঘরের দিকে।

রাত প্রায় ৯-টা বাজে খেতে বসবো ১০-টার সময়। মাসি জানে আমার রুটিন খাবার আগে আমি দু-এক পেগ ড্রিংক করি তাই আমার জন্ন্যে হুইস্কির বোতল আর সাথে গ্লাস নিয়ে ঢুকলো বলল দাঁড়ান আমি আজ আপনাকে পেগ বানিয়ে দেব বৌদিত নেই তাই। আবার কিচেনের দিকে গেল হাতে করে আইস বোল আর দুটো সোডার বোতল নিয়ে আমার সামনে মাটিতে বসে পেগ বানাতে শুরু করল বানান শেষ হলে আমার দিকে এগিয়ে দিলো আমি একটু করে গিলতে লাগলাম আর টিভি দেখতে লাগলাম। গ্লাস খালি হতেই আমার হাত থেকে নিয়ে আবার একটা বানিয়ে দিলো। এবার আমার চোখ গেল মাসির উন্নত বুকের দিকে বেশ বড় আর খাড়া এখনো মাসি ব্রা পড়েনা তবুও বেশ খাড়া খাড়া বুক দুটো। বুকের একদিকটা বেরিয়ে আছে আর আমার নজর বার বার ঐদিকেই যাচ্ছিল। টিভির দিকে তাকিয়ে আমি বললাম মাসি আর ভালো লাগছেনা এভাবে।

মাসি আমার দিকে তাকিয়ে বলল কেন দাদাবাবু আমার বানান ভালো হয়নি ? শুনে একটু হেসে বলল না না খুব ভালো হয়েছে তোমার বৌদির থেকেও তবে কি জানতো বৌদিও আমার সাথে ড্রিংক করতো আমার একা একা ড্রিংক করতে একদমই ভালো লাগেনা। শুনে মাসি আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল আপনি কি চান যে আমিও আপনার সাথে খাই ? নয় কেন তুমি আমার সাথে ড্রিংক করলে আমার ভালো লাগবে। মাসি বলল – সেটা কি ঠিক হবে দাদাবাবু , আপনি আমার মালিক আর আমি আপনাদের বাড়ির কাজের লোক।

শুনে আমি একটু রাগত স্বরে বললাম – তুমি তো গত দু বছর আমাদের বাড়িতে আছো আমরা দুজনের কেউ কি তোমার সাথে কাজের লোকের মতো ব্যবহার করেছি , আমরা তো তোমাকে আমাদের বাড়ির একজন হিসেবেই দেখি। এই কাজের লোক কথাটা বলে আমাকে তুমি খুবই দুঃখ দিলে। মাসি মাথা নিচু করে বলল আমি সেটা বলতে চাইনি কিন্তু আমিতো জানি আমি কি। ঠিক আছে দাদাবাবু আপনি চাইলে আমিও আপনার সাথে খেতে পারি।

বললাম তাহলে যায় আর একটা গ্লাস নিয়ে এস। মাসি উঠে গিয়ে একটা গ্লাস নিয়ে নিজের জন্যে একটা পেগ বানাল আর আমার গ্লাস খালি দেখে আমার গ্লাসটাও ভর্তি করে দিলো। মাসি নিজের মুখের কাছে গ্লাস নিয়ে যেতেই আমি হাত ধরে ফেললাম তারপর ওর গ্লাসের সাথে ঠেকিয়ে “চিয়ার্স ” বলে বললাম নাও এবার খাও।

মাসি এক ঢোক গিলেই মুখটা বিকৃত করে আমাকে বলল দাদাবাবু একদম খেতে ভালো নয় কি রকম গলাতে গিয়ে লাগল , পুরো গ্লাসটা যদি আমার পেটে গেলে কিছু হবেনাতো? শুনে একটু হেসে বললাম অরে কিছু হবে না এক গ্লাস কেন দু গ্লাস খেলেও কিছু হবেনা। তুমি খাও তো সাথে চিকেন পকোড়া ছিল মাসিকে বললাম নাও চিকেন পকোড়া খাও দেখবে ড্রিঙ্কসের স্বাদ খারাপ লাগছেনা। মাসি চিকেন পকোড়া খেতে খেতে আমার দিকে তাকিয়ে বলল এবার তো ঠিক আছে বৌদির মতো আপনার সাথে মদ খাচ্ছি।

একটু হেসে বললাম এখন ঠিক আছে তবে কি জানতো তুমিতো তোমার বৌদির মতো আমার ড্রিঙ্কস বানিয়ে দিলে নিজেও আমার সাথে খাছ কিন্তু তোমার বৌদি ড্রিংক করতে করতে আর যা যা করে সেটাতো সেটাতো আর তুমি করবে না। শুনে মাসি বুঝতে পারলো আমি কি বলছি কেননা মাসি জানে যে ছবি এক গ্লাস শেষ করেই আমার বাড়া বের করে চটকাতে থাকে আর মুখে পুড়ে চুষতে থাকে ওর নেশা যতো জমে ওঠে ওর যৌন আখাঙ্কা ততই মাথা চারাদিয়ে ওঠে।

সাথে থাকুন।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top