পারিবারিক গ্রুপ খেলা পর্ব ২

প্রায় ঘন্টা খানেক পর আপু দুই কাপ কপি নিয়ে ছাদে আসে সাথে আম্মুও আসে। কিছুক্ষন আম্মু আমাদের সাথে কথা বলে চলে যায় নিচে। আপু আমার পাশে বসে আমার কাজ দেখছে। আর বার বার কথা বলছে। গায়ে গা লাগিয়ে বসে আছে। ল্যাপটপের বোতামে কাজ করতে গিয়ে আমার কনুই লেগে যাচ্ছে আপুর দুধে। মুখে বলছি সরে বস কিন্তু সড়ছে না তাই এক সময় বিরক্ত হয়ে কনুই দিয়ে আপুর দুধে গুতা দিয়ে বলি একটু সরে বস না কাজ করতে পারছি না।

আপু না সরে বলে, গুতা দিচ্ছিস কেন? এখন কাজ করার দরকার নাই আমি কথা বলবো বলে আরো চেপে বসে।

আবার গুতা দিয়ে বলি, দুই মিনিট সময় দাও। নয়তো বার বার গুতা খাবে।
না তুই আর কাজ করবি না। কথা বলবো তাই আমি আসছি। আবার গুতা দিলে থাপ্পড় দিব।

এই একটাই কথা শুধু থাপ্পড় আর থাপ্পড়। আদরতো আর করতে পারনা।
আমার গাড়ে হাত রেখে একটু চেপে বলে এই যে আদর করছি।

এমন ভাবে আদর করলে আমার কল্পনা বাস্তবে চলে আসবে আপু। সাবধান।
কেন আমি তোর কল্পনায় এমন আদর করি নাকি।

কি যে বল আপু, কল্পনায় তোমার চেয়ে আমিই বেশি করি আদর।

তাই, ইচ্ছামত করিস কারন বাধা দেওয়ার কেউ নাই। অসভ্য কোথাকার।

বাধা দিবে কেন আপু। কল্পনার জগৎ আনন্দের মজার। মজা পাইলে কেউ বাধা দেয়। আমি আবার ভাল করে দুধে গুতা দিয়ে সরানোর চেষ্টা করি। কিন্তু আপু সরে না। তাই আমি বলি, তোমার কি গুতা খেতে ভাল লাগছে আপু। আমার তাই মনে হচ্ছে।

যা অসভ্য বলেই আপু সরে যায়।
আপু বসা থাকা অবস্তায়ই আমি চেয়ার থেকে উঠে দাড়িয়ে পা টেলে বাহির হতেই আপু দাঁড়িয়ে যায়।

দুধ দুইটা আমার সামনে এক ইঞ্চি দূরে রেখে বলে, কই যাস।

আমি হেসে দিয়ে বলি, এখানে থাকলে আমার আর কল্পনার জগৎ থাকবে না। বেড রোমে গিয়ে কল্পনা করি।

কল্পনা করার এত সখ তোর। আমার মন ভালনা। ছাদে গল্প করি তারপর যাবি।

তোমার মন ভাল করার চেষ্টা করেছি আজ সারা বিকাল। আমার আর কি করার আছে। বাস্তবে তোমার মন ভাল করার ক্ষমতা আমার নাই।

আপু আমাকে হাগ দিয়ে ধরে দুধ চ্বপে দেয় বুকে আর বলে সত্যিই আজ আমার মন খুব খারাপ আকাশ। তোর কাছে থাকলে আমার ভাল লাগে।

আমি বুঝতে পারছি, আপুর মন খারাপ না। সেক্সুয়াল ইন্টেমেসি কাজ করছে। বয়সের অসুখ। যখন তখন শরির গরম হয়ে যায়। পুরুষের স্পর্শ চায়। আমি আপুর মুখটা তুলে চোখে চেয়ে বলি, তোমার মন খারাপ না আপু। তোমার বিয়ে দরকার। ভালবাসা দরকার। সংগ দরকার, স্পর্শ দরকার,

আপু আমার দিকে চেয়েই বলে, আমার কিছুই দরকার না। তুই সংগ দিলেই হবে,

আপু, আমি সংগ দিলেই হবে না। সংগের সাথে তোমার কারো অংগও দরকার। এই কথা বলে, আমি আপুর গালে একটা চুমু দিয়ে দেই আর বলি, আমাকে চেড়ে দাও নয়তো তোমার ক্ষতি হবে।

কি ক্ষতি হবে, কি করবি তুই। কল্পনায়তো সব কিছুই করিস।

এই যে তোমার গালে আমি চুমু দিয়েছি। আমার ইচ্ছা করছে টুঠে দেই। সেটা শুধু কল্পনায় সম্ভব। কল্পনায় সব জায়গায় সব কিছু করা যায়।

আচ্ছা তুই চোখ বন্ধ কর।

আমি চোখ বন্ধ করতেই আপু আমার টুঠে টুঠ লাগিয়ে চুমু দিয়ে দেয়। আপুর টুঠের গরম স্পর্শ পেয়েই যেন আমার গায়ে আগুন ধরে যায়। আমি চোখ বন্ধ করেই দাঁড়িয়ে থাকি। কথা বলি না। চুপ দেখে আপু আবার চুমু দিয়ে ধরে রাখে কিছুক্ষন। আমাকে চেড়ে বাহির হয়ে ছাদের এক পাশে গিয়ে দাড়িয়ে থাকে। আমিও বাহির হয়ে কাছে যাই আর বলি, আপু তুমি কি করলে সেটা।

কেন তোর ভাল লাগেনি? শুধু কল্পনা কল্পনা করিস তাই বাস্তবে দিলাম। সারা বিকাল আমার টুঠের দিকে দেখছিস তাই আমার আদরের ভাইটাকে বাস্তবেই একটা টুঠে চুমু দিলাম। দেখলামতো খুব মজা পেয়েছিস।

আপু আমার চেয়ে তুমি বেশি মজা পেয়েছ। এই জিনিস যে দেয় তার বেশি মজা।

আপু লজ্জাহীন ভাবে জোস্নার আলোতে আমার দিকে চেয়ে বলে, ও আচ্ছা এইবার তুমি দেওয়ার ফন্দি করছো। ঠিক আছে দিস কিন্তু এইখানে হবে না। খোলা ছাদে বোনের টুঠে কেউ চুমু দেয়?

কি হবে দিলে?

বাবু লোকে আমায় কলংকিনি বলবে। আয় বলে আবার আমার রোমে ঢোকে দরজা বন্ধ করে দেয়। আর বলে, শুধু একটা চুমু কিন্তু।

শুধু একটা আপু! যদি ভাল লাগে আরো দিতে ইচ্ছা করে।

ঠিক আছে, যদি আমার ভাল লাগে তাহলেই দিতে দিব। শর্ত শুধু টুঠ আর কোন জায়গায় হাত যেন না যায়।

আমি আপুকে বুকে জড়িয়ে ধরি আর বলি, আর কিছুই লাগবে না। আমি আপুর টুঠের মাঝে টুঠ রাখি। খুব মোলায়েম ভাবে স্পর্শ করি আমার টুঠ। অল্পক্ষন টুঠ চুসে আমার জিহভা আপুর ভেতর দিতে যাই কিন্তু আপু নিচ্ছে না। অল্প চেষ্টা করে চুপ হয়ে যাই। এখন আপু নিজেই নিজের জিহভা দিয়ে স্বাগতম জানায়। ফ্রেন্স কিসে আমরা লিপ্ত হই। আমার দুই হাত আপুর পাছায় রাখি আর আলতো করে চাপ দেই আর আপু যেন কারেন্টর সখ খায় আর আমার গায়ে জড়িয়ে যায়, চাপ দেয়। আমিও পাছার খাজে হাত বুলিয়ে আদর করি। এক সময় আমি ছেড়ে দিয়ে বলি, আর না আপু চল নিছে যাই।

কেন? নিচে যাব কেন? নিচে গিয়ে কি করবি।

নিচে গিয়ে বাকিটা কল্পনায় করবো। আজ এর চেয়ে বেশি কিছু করা ঠিক না।

আমি দিলেতো এর চেয়ে বেশি করবি। কথা ছিল শুধু টুঠ তুই শর্ত ভংগ করেছিস। আমার পেছনে হাত দিলে কেন?

আপু কোন পুরুষ মেয়ের টুঠে চুমু দিলে তার হাত পাছায় চলে যায়। বাধা মানে না। তারপর হাত কাপড় খুলতে থাকে। আমি কাপড় খোলার আগেই থেমে গেছি। তোমার ভাগ্য ভাল। এখন থেকে ভাই বোনের ভালবাসা টুঠের চুমুতেই প্রকাশ হবে সব সময় কি বল।

তা করিস কিন্তু কাপড়ে হাত দিসনা। তোর যখন মন চাইবে চুমু দিস। ফ্রি করে দিলাম আমার টুঠ।

শুধু টুঠ। তবে তোমার জন্য আমার সব ফ্রি।
জ্বী না। আমি এত সস্তা না বলে আপু আবার খপ করে একটা চুমু দিয়ে বলে আমি গেলাম।

আমি আপুর চলে যাওয়া চেয়ে চেয়ে দেখলাম।।দরজা কাছে গিয়ে আপুর পাছায় একটা হাত দিয়ে থাপ্পড় মেরে বলি, খুব ভাল লেগেছে।

আপু ঘুরে দাঁড়িয়ে আমার দিকে চেয়ে বলে, কোনটা টুঠ না পাছা। হা হা করে হেসে চলে যায়।

আমি বলি, আপু সব কিছুই ভাল। দেখার অপেক্ষায়।
আপু উত্তর দেয়, এত লোভ ভাল না।

আমরা যত রাতেই ঘুমাই। সকাল ৮ টায় নাস্তার টেবিলে থাকতে হবে সেটা আম্মুর আইন। নাস্তার টেবিলে বসে নাস্তা খাচ্ছি। আমরা তিন জন। আব্বু মর্নিং ওয়াক থেকে আসতে দেরি হচ্ছে। আপু আমার দিকে একবার চেয়ে আম্মুকে বলে, আম্মু দেখতো আমার টুঠ কি ফোলা। ব্যাথা করছে। মনে হয় পিপড়া কামর দিয়েছে।
আম্মু একবার চেয়ে বলে, পিপড়া পাবি কই? একটু লাল হয়ে আছে। ঠিক হয়ে যাবে।

না আম্মু ঘরে পিপড়া আছে।

আমি আপুর দিকে চেয়ে বলি, পিপড়া থাকলে তুমি পিপড়াকে কামর দিয়ে দিও। সামান্য একটু ব্যাথা কেমন করছো। মানুষ আরো কত বড় বড় ব্যাথা পায়। কম্পলিন নাই। আম্মু প্রতিদিন কত ব্যাথা নিয়ে কাজ করে, কই কম্পলিন তো করতে দেখি নাই।

আম্মু বলে, খাবার খেয়ে বাজারে যেতে হবে তোদের। গরুর মাংশ মাছ আর সবজি নিয়ে আসবি। কাজের মেয়েটা আসবে ১১ টায়। তার আগেই আসতে হবে। বিকালে আমি আর তোর আব্বু বেড়াতে যাব তোদের নানুর বাসায়। ইচ্ছা করলে তোরাও যেতে পারিস।

আমি বলি, না আম্মু তোমরা দুইজন যাও। আমরা বাসাতেই থাকবো। আমিও বিকালে বন্ধুদের সাথে দেখা করতে যাব।
না আকাশ, তুই বাহিরে যেতে পারবি না। আমার কিছু শপিং আছে তুই আমার সাথে যেতে হবে।।

আম্মু বলে তাহলে দুপুরে খেয়ে শপিংয়ে চলে গেলেই হয়।

আম্মু কিচেনে ক্লিন করছে আর আপু আমার রোমে এসে বলে, এত বড় পিপড়া ঘরে, তুই নাই বললি কেন? আমার টুঠ ব্যাথা করছে। এইভাবে কামড় দিয়েছিস কেন? আম্মু প্রতিদিন কি ব্যাথা পায়?

আব্বু আম্মুকে প্রতিদিন ব্যাথা দেয়। তোমারও সেই ব্যাথা পাওয়ার সময় হয়েছে।

জ্বী না। টুঠের ব্যাথাই সহ্য করতে পারি না আবার অন্য ব্যাথা। সখ কত ব্যাথা দিবে। তাও আবার নিজের বোনকে।

আজ হউক কাল হউক ব্যাথা তোমাকে আমি দিবই আপু। আমার মনে হচ্ছে ব্যাথা পাওয়ার জন্য তুমিই আমাকে মিনতি করবে।

জ্বী না। ব্যাথা পাওয়ার জায়গা আমি ঠিক করে নিব। আপনার কষ্ট করে আমাকে ব্যাথা দিতে হবে না।।আপনি যে মানুষকে ভাল ব্যাথা দিতে পারেন তা বুঝতে পারছি কাল রাতেই। সারারাত ঘুমাতে পারিনাই। আগুন জ্বলছে।

চলে আসতে আমার কাছে। আগুন নিভিয়ে দিতাম। ভাল ঘুম হত।

তুই মনে হয় ফায়ার সার্ভিসের লোক। মানুষের আগুন নির্বাপক যন্ত্র নিয়ে ঘুরিস।

অবশ্যই যন্ত্র আছে। আবার আগুন লাগলে ডাক দিও হস নিয়ে হাজির হব।

আপু হেসে দিয়ে বলে আমার আগুন বাসা অনেক উপরে তোর হসে খোলাবে না।

যত উপর তালাতেই হউক আমার হস স্প্রে করতে সক্ষম। কাজ না হলে মুল্য ফেরত।

আপু হাসি দিয়ে আমায় থাপ্পড় দিয়ে বলে, এত কথা বলিস কি করে। হসওয়ালা হইছিস। তোর হস তোর কাছেই থাক আমার আগুন আমিই নিভাতে পারি। চল বাজারে যাই ঘুরে আসি। যাওয়ার আগে একটা চুমু দিয়ে যাই।

আমি মুখ সড়িয়ে বলি, না চুমু দিলে আমার হাত ফিসফিস করে কিছু একটা ধরতে। থাকতে পারিনা। ধরার অনুমতি না দিলে শুধু চুমু দিব না।

আমি কি কালকে বাধা দিয়েছি। আদর করে ধরলে আমি বাধা দেই না। চিপাচাপায় যেন হাত না যায়।

What did you think of this story??

Comments

Scroll To Top